মেইন ম্যেনু

আগুনে পুড়ে যাওয়া ক্ষত সারাতে তেলাপিয়া মাছ অত্যন্ত কার্যকরী!

তেলাপিয়া এমন একটি মাছ, যা সারা বছরই বাজারে পাওয়া যায়। মাছে-ভাতে বাঙালির কাছেও এটি প্রিয় একটি মাছ। শুধু স্বাদেই নয়, পুষ্টিবিদদের মতে, এ মাছের পুষ্টিগুণ অসাধারণ! তেলাপিয়া মাছে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে পটাশিয়াম, প্রোটিন, ভিটামিন বি-১২, ফসফরাসের মতো একধিক অপরিহার্য উপাদান।

তবে জানেন কি, আগুনে পুড়ে যাওয়া ক্ষত সারাতেও তেলাপিয়া মাছ অত্যন্ত কার্যকরী!

ব্রাজিলীয় চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, আগুনে পুড়ে যাওয়া অংশে তেলাপিয়া মাছের ছাল ব্যান্ডেজের মতো লাগিয়ে রাখলে ওই ক্ষত খুব তাড়াতাড়ি সেরে যায়। শুধু তাই নয়, যন্ত্রণাও দ্রুত কমে যায়।

বিজ্ঞানীদের মতে, তেলাপিয়া মাছের ছালে কোলাজেন প্রোটিনের টাইপ ‘১’ ও টাইপ ‘৩’ রয়েছে, যা আগুনে পুড়ে মারাত্মক ক্ষতিগ্রস্থ হওয়া অংশকেও (থার্ড ডিগ্রি বার্ন কেস) খুব সহজে সারিয়ে তুলতে পারে। ইতোমধ্যেই এই চিকিৎসা পদ্ধতি নিয়ে পরীক্ষা-নিরীক্ষা শুরু হয়েছে।

২০১৬ সালে এক ব্রাজিলীয় মৎস্যজীবীর আগুনে পুড়ে যাওয়া হাতের চিকিত্সা করতে গিয়ে প্রথম তেলাপিয়া মাছের ছালের এই আশ্চর্য গুণ জানা যায়।

জানা গেছে, ওই মৎস্যজীবীর নাম অ্যান্টোনিও সান্টোস। তার নৌকায় থাকা একটি গ্যাসের টিন ফেটে ডান হাতের অধিকাংশটাই পুড়ে যায় অ্যান্টোনিওর। ব্রাজিলের ফোর্টালেজ এলাকার একটি হাসপাতালের চিকিৎসক এডমার ম্যাসিয়েল অ্যান্টোনিওর হাতের পুড়ে যাওয়া অংশে তেলাপিয়া মাছের ছালের প্রলেপ লাগিয়ে প্রথম পরীক্ষামূলকভাবে এই চিকিৎসা শুরু করেন, সফলও হন। এরপর অনেকের উপরেই এই পদ্ধতিতে চিকিৎসা চালানো হয়। দেখতে দেখতে বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে ছড়িয়ে পড়ে এই খবর। বিকল্প ছাল দিয়ে (আক্রান্তের শরীরের অন্যান্য অংশের চামড়া বা ছাল দিয়ে) দগ্ধ অঙ্গ সারিয়ে তোলার পদ্ধতি দীর্ঘদিনের। ওই চিকিৎসা পদ্ধতিতে নতুন সংযোজন হল তেলাপিয়া মাছের ছাল।



মন্তব্য চালু নেই