মেইন ম্যেনু

আশুলিয়ায় কথিত ‘বন্দুকযুদ্ধে’ ডাকাত নিহত, দেশীয় অস্ত্র উদ্ধার

নিজস্ব প্রতিবেদক : সাভারের আশুলিয়ায় পুলিশের সাথে বন্দুকযুদ্ধে এক ডাকাত নিহত হয়েছে বলে দাবী করেছে পুলিশ। এসময় ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার করা হয়েছে বেশ কিছু দেশীয় অস্ত্র। নিহতের মরদেহ ময়না তদন্তের জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানোর প্রস্তুতি চলছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

বুধবার গভীর রাতে টঙ্গী-আশুলিয়া-ইপিজেড সড়কের মরাগাং এলাকায় এই ঘটনা ঘটে।

নিহত ডাকাত আশরাফ তুরাগ থানাধীন এলাকার বাসিন্দা। আটক অপর ডাকাতরা হলো- রাসেল (গুলিবিদ্ধ) ও মাসুদ। তবে তাদের বিস্তারিত পরিচয় জানায়নি পুলিশ।

আশুলিয়া থানার উপপরিদর্শক মো. মনিরুজ্জামান জানান, গত সোমবার রাত ১০টার দিকে টঙ্গী-আশুলিয়া-ইপিজেড সড়কের মরাগাং এলাকায় ডাকাতির প্রস্তুতি নিচ্ছিল একদল ডাকাত। এসময় সড়কে টহলরত পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে ডাকাতরা পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি ছোড়ে ও পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে। এসময় পুলিশের গুলিতে রাসেল নামে এক ডাকাত পায়ে গুলিবিদ্ধ হয়। তবে এসময় ডাকাত দলের অন্য সদস্যরা পালিয়ে যেতে সক্ষম হয়। পরে গুলিবিদ্ধ ঐ ডাকাতকে স্থানীয় নারী ও শিশু স্বাস্থকেন্দ্র হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়।

এই কর্মকর্তা আরো জানান, এরপর রাসেলের দেওয়া তথ্যমতে বুধবার রাতে মরাগাং এলাকায় অভিযান চালিয়ে মাসুদ নামে আরো এক ডাকাতকে আটক করা হয়। পরে ডাকাত রাসেল ও মাসুদকে নিয়ে রাতেই অভিযানে নামেন আশুলিয়া থানার উপ-পরিদর্শক মাসুদ রানা ও ঢাকা জেলা উত্তর গোয়েন্দা পুলিশ। পরে রাতে তাদের দেওয়া তথ্যমতে, টঙ্গী-আশুলিয়া-ইপিজেড সড়কের মরাগাং এলাকার একই জায়গায় ডাকাতির প্রস্তুতিকালে পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে গুলি ছোড়ে ডাকাতরা। এসময় পুলিশের সাথে বন্দুকযুদ্ধে আশরাফ নামে এক ডাকাত নিহত হয়। পরে আহত ঐ ডাকাতকে সাভার উপজেলা স্বাস্থ কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষনা করেন।

সাভার উপজেলা স্বাস্থ কমপ্লেক্সের মেডিকেল অফিসার ড. দেবারথি বসাক আওয়ার নিউজ বিডিকে জানান, রাত ২ টা ১০ মিনিটে আশুলিয়া থানার উপ-পরিদর্শক রুহুল আমিন রক্তাক্ত ও মৃত অবস্থায় এক ব্যক্তিকে হাসপাতালে আনেন। নিহত ব্যক্তির বুকের বাম পাশে দুইটি গুলির চিহ্ন ছিল।

এঘটনায় আশুলিয়া থানায় দুইটি পৃথক মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে বলে জানান আশুলিয়া থানার পরিদর্শক (তদন্ত) জাবেদ মাসুদ।



মন্তব্য চালু নেই