মেইন ম্যেনু

উত্তেজনার মধ্যে ভারতে চলছে ষষ্ঠ দফার ভোট

ভারতজুড়ে চলছে লোকসভা নির্বাচনের ষষ্ঠ দফার ভোটগ্রহণ। এ দফায় ৬টি রাজ্য ও ১টি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলের ৫৯টি কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ চলছে। ভোট শুরুর আগে ও শুরুর পর কয়েকটি জায়গায় উত্তেজনা তৈরি এবং ক্ষমতাসীন বিজেপির এক কর্মী খুনের খবর দিচ্ছে ভারতীয় গণমাধ্যমগুলো।

এ পর্বে ভারতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যে ৮টি আসনে ভোটগ্রহণ চলছে। এ ছাড়া উত্তরপ্রদেশের ১৪টি, হরিয়ানার ১০টি, বিহার, মধ্যপ্রদেশ ও ঝাড়খণ্ডের ৪টি কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ চলছে।

অন্যদিকে, রাজধানী দিল্লির সাতটি কেন্দ্রেই ভোট শেষ হচ্ছে আজ। এ পর্বে ভোটারের সংখ্যা ১০ কোটি, প্রার্থীর সংখ্যা ৯৭৯ জন। ভোটগ্রহণ কেন্দ্র ১ লাখ ১৩ হাজার।

আনন্দবাজার বলছে, ষষ্ঠ দফা শুরুর আগের রাত থেকেই উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে পশ্চিমবঙ্গ। খুন হয়েছে ঝাড়গ্রামের গোপীবল্লভপুরের বিজেপির বুথ সভাপতি। শনিবার গভীর রাতে ঝাড়গ্রামের জুনাসোলায় তার ওপর হামলা করে দুষ্কৃতকারীরা। হামলায় মৃত্যু হয়েছে তার। বিজেপির ওই বুথ সভাপতির নাম শ্রী রামিন সিংহ। বিজেপির অভিযোগ, তৃণমূলের আশ্রিত দুষ্কৃতীরাই তাকে খুন করেছে। যদিও তৃণমূলের তরফে অভিযোগ পুরোপুরি অস্বীকার করা হয়েছে।

বাঁকুড়াতেও বিজেপি কর্মীর ওপরে হামলার ঘটনা ঘটেছে। শনিবার রাতেই বাঁকুড়া শহরের রবীন্দ্র সরণিতে বিজেপি কর্মী বিপু দাসের দাদা শিবশঙ্কর দাসের ওপর হামলা হয়। এতে গুরুতর জখম হন তিনি।

অন্যদিকে, ভোররাতে কাঁথি লোকসভার, চণ্ডিপুর বিধানসভার, মহম্মদপুর অঞ্চলের পশ্চিমবাড় গ্রামের ২৩, ২৪ নং বুথের বিজেপি বুথকর্মী অনন্ত গুচ্ছাইত এবং রঞ্জিত মাইতির ওপর পুলিশের পোশাকে তৃণমূলের কর্মীরা হামলা চালায় বলে অভিযোগ। গুলিতে জখম হয়েছেন বিজেপির দুই কর্মী। তবে অভিযোগ অস্বীকার করেছে তৃণমূল।

এদিকে, কেশপুরের একটি বুথে বিজেপি প্রার্থী ভারতীকে ঢুকতে বাধা দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে তৃণমূলের বিরুদ্ধে। দলের পোলিং এজেন্টকে বসতে দেওয়া হচ্ছে না, বুথে এক সঙ্গে অনেক লোক ঢুকে পড়ছেন— এমনই সব অভিযোগ পেয়ে শিবশক্তি হাইস্কুলের ২০৬, ২০৭ নম্বর বুথে গিয়েছিলেন ভারতী। সেই সময়ই তাকে মহিলাদের বাধার মুখে পড়তে হয়। অভিযোগ, তাকে ধাক্কা মেরে ফেলে দেওয়ার পাশাপাশি শারীরিকভাবে নিগ্রহও করা হয়। ৪০ মিনিট ধরে চেষ্টা করেও বুথে বিজেপির এজেন্টকে বসাতে পারেননি ভারতী। পরে ফিরে যান সেখান থেকে।

তবে উত্তেজনার এক পর্যায়ে ভারতী তার দেহরক্ষীদের গুলি চালানোর নির্দেশ দেন। এতে তৃণমূলের এক কর্মী গুলিবিদ্ধ হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

এ ছাড়া ভারতী ঘোষের বিরুদ্ধে সন্ত্রাসের অভিযোগ তুলেছেন ঘাটালের তৃণমূল প্রার্থী অভিনেতা দেব। তিনি বলেন, ‘৪০-৫০ দিন ধরে সন্ত্রাসের আবহ তৈরি করেছেন ভারতী। পুলিশ, ওসি-কে ধমকাচ্ছেন। ভোট কেনার জন্য টাকা নিয়ে ঢুকছেন। উনি তো প্রাক্তন পুলিশ সুপার। নিয়মকানুন নিশ্চয়ই জানেন!”

পাশাপাশি তিনি বলেন, ‘চাই শান্তিপূর্ণভাবে ভোটটা হোক। শুধু এ রাজ্যেই নয়, গোটা দেশে।’



মন্তব্য চালু নেই