মেইন ম্যেনু

এক পায়ে বিশ্ব জয়ের পথে ‘আশ্চর্য’ প্রদীপ

শুক্রবার অফিস পাড়ায় একটা কাজে গিয়েছিলাম। কাজ শেষ করে ফিরছি, এমন সময় চাঁদনিচকের একটি অফিসের বাইরে এক যুবককে ওই অফিসেরই নিরাপত্তারক্ষীদের কাছে অনুনয় বিনয় করতে দেখে দাঁড়িয়ে পড়লাম। দেখলাম, সাইকেল নিয়ে রাইডিং হেলমেট পরা ওই যুবকের বাঁ হাঁটুর নীচ থেকে কাটা। অর্থাত্ বাঁ পা নেই। কৃত্তিম পায়ের সাহায্যে অবলীলায় দাঁড়িয়ে সেই যুবক কী যেন বোঝানোর চেষ্টা করছেন ওই অফিসের নিরাপত্তারক্ষীদের। কৌতুহল হওয়ায় এগিয়ে গেলাম সেই দিকে। যুবকটির পাশে দাঁড়ানোর পর যেটুকু কথা কানে এল তাতে বুঝলাম, ও সাহায্য চাইছে। না, টাকা পয়সার সাহায্য চাইছে না। বিনা পয়সায় একটু খাবার বা পানীয় জল চাইছে। আর যদি সম্ভব হয়, রাতটুকু কাটানোর জন্য একটু মাথা গোঁজার ঠাঁই।

কিন্তু তাঁর কেন এমন সাহায্য লাগবে? পায়ের এমন অবস্থায় সাইকেল নিয়ে কোথায় যাচ্ছেন এই যুবা? প্রশ্নটা করেই ফেললাম। উত্তরে তিনি বললেন, দূষণমুক্ত পরিবেশ আর পথ নিরাপত্তার প্রচারে সাইকেল নিয়েই বেরিয়ে পড়েছে সে। ইনদৌর থেকে যাত্রা শুরু করে দেশের বিভিন্ন শহর, গ্রাম ঘুরে দিল্লিতে শেষ হবে তার অভিযান। অবাক হয়ে গেলাম তার কথা শুনে! একটুও দেরি না করে নিজের মোবাইল নম্বরটা তাঁকে দিয়ে বললাম, “আমাকে, তোমার এই অভিযানে অংশীদার করবে? তোমার কথা আমি জানতে চাই, জানাতে চাই হাজার হাজার মানুষকে।” হাসিমুখে রাজি হয়ে গেল ছেলেটি। তারপর থেকে ওর সফরসঙ্গী হয়েছি আমিও… ভয়েস আর ভিডিও কলিংয়ের মাধ্যমে।

বছর ত্রিশের প্রদীপ কুমার মারাদওয়াল মধ্যপ্রদেশের ইনদোরের বাসিন্দা। অভাবের সংসারে নিজের পড়ার খরচ জোগাতে দশ বছর বয়সেই মাসিক মাত্র ৩০০ টাকার বিনিময়ে সাইকেল সারানোর কাজে হাত লাগায় প্রদীপ। সংসার চালানোর জন্য কখনও রঙের কারখানায়, কখনও বা কোনও কল সেন্টারে কাজ করেছে সে। কিন্তু দারিদ্র্যকে কখনও নিজের স্বপ্নের সামনে বাধা হয়ে দাঁড়াতে দেয়নি সে। সারাদিনের অক্লান্ত পরিশ্রমের ফাঁকে থিয়েটারে অভিনয়, আঁকা শেখা, গান…কিছুই বাদ দেয়নি প্রদীপ। ছেলের এমন বহুমুখী প্রতিভা দরিদ্র পরিবারে আশার আলো দেখায়। কিন্তু ২০১৩ সালের একটি ট্রেন দুর্ঘটনায় বাঁ পা কাটা পড়ে প্রদীপের। এরপরই দরিদ্র মারাদওয়াল পরিবার অর্থনৈতিক অনিশ্চয়তায় ভেঙে পড়ে। ছেলের কাঁধে ভর করে স্বচ্ছল ভবিষ্যতের স্বপ্ন মুহূর্তে ভেঙেচুড়ে একাকার হয়ে যায়! কিন্তু দুর্ঘটনার প্রাথমিক ধাক্কা সামলে দ্বিগুণ মনোবলে ভর করে তখন ঘুরে দাঁড়ানোর প্রস্তুতি নিতে শুরু করে দিয়েছে বছর পঁচিশের প্রদীপ। শুরু হয় এক পায়ে একটু একটু করে উঠে দাঁড়ানোর চেষ্টা। দেখতে দেখতে একদিন ওই এক পায়েই আর পাঁচ জনের মতো স্বাভাবিক ছন্দে হাঁটতে শুরু করল প্রদীপ। আর আজ সেই প্রদীপ সাইকেলে চড়ে ৮,৮৫০ কিলোমিটার পেড়িয়ে এগিয়ে চলেছে। লক্ষ্য ১৫,২২৩ কিলোমিটার অতিক্রম করে নতুন গিনেস বুক অব ওয়ার্ল্ড রেকর্ড সৃষ্টি করা।



মন্তব্য চালু নেই