মেইন ম্যেনু

এসএসসি পাশেই গাইনি ডাক্তার : ফেলে দিল রোগীর জরায়ু

ডাক্তারী কোনো ডিগ্রী না থাকার পরও দীর্ঘ দিন ধরে নিজেকে গাইনী ডাক্তার পরিচয় দিয়ে অপারেশন করে আসছিলেন রাহিমা আক্তার।

সাম্প্রতি দুই রোগীর জরায়ুর অপারেশন করে ফেলে দেয়ার ঘটনায় র‌্যাবের অভিযান চালানোর পর দেখা গেল অভিযুক্ত হাসপাতালের ২ চিকিৎসকই ভুয়া।

বুধবার রাতে রাজধানীর যাত্রাবাড়ি দোলাইরপাড় কিউর জেনারেল হাসপাতাল এন্ড ডায়াগনষ্টিক সেন্টার নামক এক হাসপাতালে অভিযান চালিয়ে এর ২ ভুয়া ডাক্তারসহ ৩জনকে আটক করেছে র‌্যাব ১০ এর ভ্রাম্যমান আদালত।

ডাক্তার না হয়েও অপারেশন করা অপরাধে তাদেরকে ৮ লাখ টাকা জরিমানাসহ ২ বছর করে কারাদণ্ড দেয়া হয়। এছাড়াও সিলগালা করে দেয়া হয় হাসপাতালটি।

এছাড়াও হাসপাতালটির মালিক রাহিমা আক্তারকে ৪ লাখ টাকা জরিমানাসহ ২ বছর সশ্রম কারাদণ্ড দেয়া হয়।

র‌্যাব সদর দফতরের নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট মো. সারোয়ার আলম জানান, কিউর জেনারেল হাসপাতাল এন্ড ডায়াগনষ্টিক সেন্টারের মালিক রাহিমা আক্তার এসএসসি পাশ করে ২০০৮ সাল থেকে ১৩ বছর নিজেকে গাইনী ডাক্তার পরিচয় দিয়ে এ হাসপাতাল পরিচালনা করে আসছিলেন।

ভুয়া ডাক্তার এস এম আল মাহমুদ নিজেকে এমবিবিস ও এফসিপিএস ডিএমসিএইচ পরিচয় দিয়ে রোগীদের সঙ্গে প্রতারণা করে আসছিলেন।

এছাড়া সার্জারী ডাক্তার না হয়েও ডাক্তার নাজমুল হুদা কোনো সার্জারী ডাক্তারের পরামর্শ ছাড়াই একজন রোগীর জরায়ুর অপারেশন করার অপরাধে তাকে ২ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে।



মন্তব্য চালু নেই