মেইন ম্যেনু

কাশ্মীরিদের পাশে দাঁড়িয়ে যে ঘোষণা দিল ওআইসি!

জম্মু-কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা বাতিল ও সেখানে চলমান উত্তেজনায় গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছে মুসলিম দেশগুলোর পারস্পরিক সহযোগিতামূলক সংস্থা-ওআইসি। সেখানকার মানবাধিকার পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণে আন্তর্জাতিক সংস্থার প্রবেশাধিকার নিশ্চিত করতে ভারতের প্রতি দাবি জানিয়েছে তারা। সেই সাথে কাশ্মীরিদের অধিকার ফিরিয়ে দিতে এবং অঞ্চলটির ভবিষ্যৎ নিশ্চিত করতে আহ্বান জানিয়েছে মুসলিম দেশগুলোর এই সংস্থাটি।

বুধবার (৭ আগস্ট) সংস্থাটির নিজস্ব ওয়েবসাইটে পাঠানো বিবৃতিতে জানানো হয়, পাকিস্তান সরকারের প্রত্যক্ষ অনুরোধে চলমান কাশ্মীর ইস্যুতে আলোচনা করতে বৈঠকটির আয়োজন করা হয়। গত মঙ্গলবার (৬ আগস্ট) ওআইসির সদরদপ্তর জেদ্দায় আয়োজিত সেই বৈঠকে সংস্থাটির কাশ্মীর কন্টাক্ট গ্রুপের সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন। বিবৃতিতে বলা হয়, ‘বর্তমানে জম্মু ও কাশ্মীরে সৃষ্টি সংকটপূর্ণ পরিস্থিতিতে গভীর উদ্বেগ জানাচ্ছে ওআইসি। অঞ্চলটিতে যেভাবে নির্লজ্জতার মাধ্যমে মানবাধিকার হরণ করা হচ্ছে আমরা তারও নিন্দা জানাচ্ছি।’

সংস্থাটির সেক্রেটারি জেনারেলের স্বাক্ষরিত সেই বিবৃতিতে আরও বলা হয়, ‘জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের প্রস্তাব, ওআইসির শীর্ষ সম্মেলনের সিদ্ধান্ত এবং সংস্থার কাউন্সিল অব ফরেন মিনিস্টার্সের (সিএফএম) প্রস্তাব সমূহের ভিত্তিতে সংকট নিরসনে মধ্যস্থতা করতে সবগুলো পক্ষের প্রতি আমরা আহ্বান জানাচ্ছি।’

বৈঠকে জম্মু ও কাশ্মীরের চলমান পরিস্থিতি এবং ভবিষ্যতের অস্থিতিশীলতা নিয়ে পাক পররাষ্ট্রমন্ত্রী একটি বিস্তারিত প্রতিবেদন জমা দেন। যেখানে অঞ্চলটিতে বসবাসরতদের নিরাপত্তা নিশ্চিতে জরুরি পদক্ষেপ গ্রহণের জন্য আন্তর্জাতিক মহলের প্রতি আহ্বান জানানো হয়।

ওআইসির এবারের বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন সংস্থাটির অ্যাসিস্ট্যান্ট সেক্রেটারি জেনারেল এএমবি সামির বাকর দিয়াব। যেখানে উপস্থিত ছিলেন পাকিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাখদুম শাহ মাহমুদ কোরেশি এবং আজারবাইজান, নাইজার, সৌদি আরব এবং তুরস্কের প্রতিনিধিরা। বৈঠক শেষে উপস্থিত কন্টাক্ট গ্রুপের প্রতিনিধিরা কাশ্মীরি জনগণের প্রতি সংহতি এবং তাদের অধিকারের প্রতি পূর্ণ সমর্থন জানান।



মন্তব্য চালু নেই