মেইন ম্যেনু

কুপ্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় কিশোরীর হাত কেটে দিল বখাটে

বেশ কিছুদিন ধরেই ১৫ বছরের এক কিশোরীর পেছন পেছন হাঁটতেন এক যুবক। তবে এতদিন কিশোরীকে কিছু না বললেও গত বুধবার তার সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক স্থাপনের প্রস্তাব দেন তিনি।

এতে রীতিমত রেগে যান কিশোরী। উল্টোদিকে ক্ষিপ্ত হয়ে যান ওই যুবকও। দিন-দুপুরে জনবহুল বাজারের মধ্যেই ধারালো অস্ত্রের কোপে কিশোরীর একটি হাত কেটে ফেলেন তিনি। এক হাত কেটেও ক্ষান্ত না হয়ে কোপ বসাতে যান অপর হাতেও।

কিন্তু, তার সেই অপচেষ্টা রুখে দেয় জনতা। বিকৃত মস্তিষ্কের ওই যুবককেও পুলিশের হাতে তুলে দেয় তারা। আর আশঙ্কাজনক অবস্থায় কিশোরীকে ভর্তি করানো হয় হাসপাতালে।

ঘটনাটি ঘটেছে ভারতের উত্তর প্রদেশের লখিমপুর খেরি এলাকায়। পুলিশ জানিয়েছে, অভিযুক্ত যুবকের নাম বিনোদ চৌরাসিয়া। পেশায় ঝালাইকর্মী তিনি।

বেশ কয়েক দিন ধরেই নবম শ্রেণির ওই ছাত্রীকে নানা ভাবে উত্যক্ত করতেন বিনোদ। ঘটনার দিন বিকেল ৩ টা নাগাদ ফতেপুর সৈদরির কাছে একটি বাজারে যান কিশোরী। সেখানেই বিনোদের দোকান। কিশোরীকে দেখে দোকান থেকে বেরিয়ে এসে তার পিছু নেন বিনোদ।

একপর্যায়ে কিশোরীকে কুপ্রস্তাব দেয়ার পর তাতে কিশোরী রাজি না হলে এ ঘটনা ঘটে। রাগান্বিত হয়ে দোকান থেকে একটি বড় ছুরি নিয়ে এসে ওই কিশোরীর উপর হামলা চালান বিনোদ।

প্রত্যক্ষ্যদর্শী অখিলেশ রাস্তোগি জানান, একটা হাত কেটে মাটিতে পড়ে গেছে মেয়েটির। যন্ত্রণায় ছটফট করছিল সে। অন্য হাতটি কাটতে গেলে লোকজন ছুটে এসে তাকে ধরে ফেলে এবং মেয়েটিকে মৃত্যুর হাত থেকে বাঁচায়।

খেরির পুলিশ আধিকারিক এস চিনাপ্পা জানান, অত্যধিক রক্ত ক্ষরণের কারণে কিশোরির অবস্থা আশঙ্কাজনক। তাকে প্রথমে খেরি জেলা হাসপাতালে ভর্তি করে অবস্থার অবণতি হলে পরে লখনৌতে স্থানান্তরিত করা হয়েছে।

তিনি অারও বলেন, ওই কিশোরীর শারীরিক অবস্থার উন্নতিই এখন সবচেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ। সেরে ওঠার পর কিশোরীর বয়ান নিয়েই অভিযুক্তের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে। আনন্দবাজার।






মন্তব্য চালু নেই