মেইন ম্যেনু

গর্ভবতী স্ত্রীর পেটে লাথি, ক্রিকেটার মারুফের বিরুদ্ধে মামলা

নির্যাতনের মাধ্যমে স্ত্রীর গর্ভের সন্তানের মৃত্যু ঘটানোর অভিযোগে ক্রিকেটার মো. মেহেদী হাসান মারুফের (৩০) বিরুদ্ধে চট্টগ্রামের একটি আদালতে মামলা হয়েছে।

রোববার মারুফের স্ত্রী তামান্না বিনতে আজাদ (৩০) বাদী হয়ে চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আবু সালেম মো. নোমানের আদালতে মামলাটি দায়ের করেন।

তামান্না রেলওয়ে পূর্বাঞ্চলের সরঞ্জাম বিভাগের কর্মকর্তা। মেহেদী হাসান বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগে (বিপিএল) ঢাকা ডাইনামাইটসের হয়ে ও প্রথম শ্রেণির লিগে খেলে থাকেন।

বাদীর আইনজীবী অ্যাডভোকেট ইফতেখার সাইমুল চৌধুরী জানান, দণ্ডবিধির ৩১৩ ধারায় দায়ের করা মামলা গ্রহণ করে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনকে (পিবিআই) তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন আদালত। পাশাপাশি হাসপাতাল থেকে গর্ভপাতের প্রমাণ সংগ্রহ করে তা দাখিলের নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।

মামলার আরজিতে উল্লেখ করা হয়, ক্রিকেটার মারুফের ঠিকানা ক্রিকেট একাডেমি ভবন, মিরপুর ক্রিকেট স্টেডিয়াম, মিরপুর-১, ঢাকা। ঘটনাস্থল ও বাসা চট্টগ্রাম নগরীর বাটালি রোড।

এতে আরও বলা হয়েছে, ২০০৯ সালের ২৯ নভেম্বর তাদের দু’জনের বিয়ে হয়। যৌথ পরিবারে অশান্তি শুরু হলে ২০১৫ সালের ১৩ সেপ্টেম্বর মেহেদী ও তামান্না আলাদা বাসা নিয়ে বসবাস শুরু করেন। এর মধ্যে মেহেদীর সঙ্গে আরেক নারীর সম্পর্কের বিষয় জানাজানি হলে সংসারে ঝগড়া বিবাদ শুরু হয়।

গত ১৯ ফেব্রুয়ারি ঝগড়ার এক পর্যায়ে মেহেদী অন্তঃসত্ত্বা তামান্নার পেটে লাথি দিলে রক্তক্ষরণ শুরু হয়। তামান্নাকে দ্রুত চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওসিসিতে নিয়ে গেলে চিকিৎসক গর্ভের সন্তানের মৃত্যু হয়েছে বলে জানান।

এই ঘটনায় তামান্না তখনই মামলা করতে চাইলে মেহেদীর পরিবার অনুরোধ করে বিরত রাখে। কিন্তু পরবর্তীতে মেহেদী তামান্নার সঙ্গে যোগাযোগ বন্ধ করে দিয়ে তাকে হুমকি-ধামকি দিতে থাকায় তিনি মামলা দায়ের করেন বলে আরজিতে উল্লেখ করা হয়।






মন্তব্য চালু নেই