মেইন ম্যেনু

ঘুমন্ত যুবলীগ নেতাকে ছাদে নিয়ে গিয়ে গুলি, অস্বীকার পুলিশের

যশোরে এক যুবলীগ নেতাকে ঘুমন্ত অবস্থায় বাসার ছাদে নিয়ে গিয়ে তার পায়ে গুলি করার অভিযোগ উঠেছে পুলিশের বিরুদ্ধে।পরে তাকে উদ্ধার করে যশোর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।তবে পুলিশ অভিযোগ অস্বীকার করেছে। পুলিশের দাবি দু’পক্ষের গোলাগুলিতে যুবলীগ নেতা গুলিবিদ্ধ হয়েছেন।

গুলিবিদ্ধ মেহবুব রহমান ম্যানসেল (৩২) সদর উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম আহবায়ক।তার বাম পায়ে গুলি করা হয়েছে। রোববার গভীর রাতে শহরের ষষ্ঠীতলা পাড়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

পুলিশের দাবি, দুপক্ষের গোলাগুলিতে ম্যানসেল গুলিবিদ্ধ হয়েছেন। এসময় অস্ত্র ও গুলি উদ্ধার করা হয়েছে।

তবে পরিবার ও স্থানীয় যুবলীগের দাবি, গভীর রাতে পুলিশ মুখোশধারী সন্ত্রাসীদের নিয়ে ম্যানসেলের বাড়িতে হামলা চালায়।এসময় ঘুমন্ত ম্যানসেলকে ঘুম থেকে উঠিয়ে ছাদে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে তার পায়ে গুলি করা হয়।

গুলিবিদ্ধ ম্যানসেলের বাবা মোহাম্মদ আলমাসের ভাষ্য, ম্যানসেল বাসায় ঘুমিয়ে ছিলেন।রাত আড়াইটার দিকে সাদা পোশাকে পুলিশ বাড়ি ঘিরে ফেলে। তারা ঘরে ঢুকে ম্যানসেলকে ছাদে নিয়ে যায়। এরপর গুলির শব্দ শুনেছি। তবে আমরা ঘটনাস্থলে যেতে পারিনি। বাইরে থেকে ঘরের দরজা বন্ধ করে দেয়া হয়েছিল। পুলিশ তাকে হাসপাতালে নিয়ে যায়। সেখানে গিয়ে দেখি ম্যানসেল গুলিবিদ্ধ জখম।

জেলা যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মঈনুদ্দিন মিঠু জানান, কিছুদিন আগে ‘স্ট্রোক’ করার পর থেকে ম্যানসেলের শরীরের ডানপাশ প্রায় অবশ।এরপর থেকে তিনি বেশিরভাগ সময় বাড়িতেই থাকতেন। গতকাল রাতে মুখবাধা কয়েকজনকে নিয়ে পুলিশ ম্যানসেলের বাসায় হামলা চালায়।তার পায়ে গুলি চালায়।

তবে যশোর কোতয়ালী থানার ওসি অপূর্ব হাসান জানান, রোববার দিবাগত রাত ৩টার দিকে শহরের ষষ্টিতলা পাড়ায় দুদল সন্ত্রাসীর মধ্যে গুলি বিনিময়ের ঘটনা ঘটে। এসময় পুলিশ ঘটনাস্থলে গেলে সন্ত্রাসীরা পালিয়ে যায়। সেখান থেকে পায়ে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় ম্যানসেলকে উদ্ধার করে পুলিশ। তাকে হাসপাতালে নেয়া হয়।

ওসি জানান, ঘটনাস্থল থেকে তিনটি পিস্তল ও ১২ রাউন্ড গুলি উদ্ধার করা হয়েছে।তিনি জানান, ম্যানসেলের বিরুদ্ধে কোতয়ালি থানায় একাধিক হত্যাসহ ১৫টি মামলা রয়েছে।



মন্তব্য চালু নেই