মেইন ম্যেনু

ট্রাম্পের যে ছবি নিয়ে সারাবিশ্বে আলোচনার ঝড়!

টেবিলে দুই হাতের থাবা ছড়িয়ে দিয়ে জিজ্ঞাসাবাদের ভঙ্গিতে চ্যান্সেলর মারকেল ‘নার্ভাস’ ট্রাম্পের সঙ্গে কথা বলছেন। সারা বিশ্বে এই ছবি নিয়ে আলোচনা হচ্ছে-

সাধারণত উন্নত বিশ্বের দেশগুলোর সম্মেলনের এক পর্যায়ে সবাই ছবি তোলার জন্য পোজ দেন। সেই ছবিই ব্যবহৃত হয় বিশ্বের গণমাধ্যমগুলোতে। কিন্তু এবারের জি-সেভেন সম্মেলনে সে ধরনের ছবির চেয়ে অন্য কয়েকটি ছবি বেশি প্রচার পেয়েছে। এগুলোর সবগুলোতেই শুল্ক ও বাণিজ্য নিয়ে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সঙ্গে অন্য দেশগুলোর শীর্ষ নেতাদের মুখোমুখি উত্তেজিত অবস্থায় দেখা গেছে। কাছাকাছি মুহূর্তের ওই ছবিগুলোতে সম্মেলনকে ঘিরে প্রত্যেকটি দেশের আলাদা আলাদা দৃষ্টিভঙ্গি বোঝা যাচ্ছে বলেও মন্তব্য আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমগুলোর।

বাণিজ্য নিয়ে মতবিরোধ, ইস্পাত ও অ্যালুমিনিয়াম আমদানিতে যুক্তরাষ্ট্রের ২৫ শতাংশ শুল্ক আরোপ নিয়ে ক্ষুব্ধ ইউরোপ ও কানাডার নেতারা এবারের সম্মেলনে মার্কিন প্রেসিডেন্টকে চেপে ধরবেন বলে আগেই আশঙ্কা করেছিলেন পর্যবেক্ষকরা। ভাইরাল হওয়া ছবিগুলোতেও তারই প্রমাণ পাওয়া গেছে।

বসে থাকা ট্রাম্পের আশপাশে কর্মকর্তাদের ভিড়, ছোট টেবিলের অন্যপ্রান্তে খসড়া ঘোষণা হাতে দাঁড়ানো আঙ্গেলা মারকেল ও ইমানুয়েল ম্যাক্রোঁ তাদের অবস্থান নিয়ে মার্কিন প্রেসিডেন্টের সঙ্গে তর্কে লিপ্ত- সাধারণভাবে সব ছবিতেই এ বিষয়টি বোঝা গেলেও আসলে প্রত্যেকটিতেই প্রকাশ পাচ্ছে ভিন্ন মেজাজ।

ছবির মার্কিন সংস্করণটিতে ট্রাম্পকে দেখানো হয় পুরো সম্মেলনের মধ্যমণি হিসেবে। এতে দেখা যাচ্ছে- অস্বস্তির বাতাসের মধ্যেও দুই হাত বুকের কাছে জড়ো করে চেয়ারে পিঠ ঠেকিয়ে বসে আছেন আত্মবিশ্বাসী মার্কিন প্রেসিডেন্ট। তাকে ঘিরে ঝুঁকে থাকা অন্যান্য দেশের নেতা ও কর্মকর্তারা বেশ চিন্তিত।

মার্কিন ছবির প্রত্যুত্তরে দশ মিনিট পর একই মুহূর্তের ভিন্ন একটি ছবি প্রকাশ করে ফরাসি প্রেসিডেন্টের দপ্তর। বিপরীতমুখী কোণ থেকে তোলা এ ছবিতে ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রোঁকে মার্কিন প্রেসিডেন্টের সঙ্গে বিতর্ক করতে দেখা যায়। অন্য বিশ্বনেতারা স্থানুর মত দাঁড়িয়ে অনেকটা মন্ত্রমুগ্ধ হয়ে শুনছেন ম্যাক্রোঁর যুক্তি।

এর কিছুক্ষণ পরেই জার্মান চ্যান্সেলরের দপ্তর থেকে যে ছবি ছাড়া হয়, তাতে সন্ধান মেলে প্রভাববিস্তারকারী মারকেলের। টেবিলে দুই হাতের থাবা ছড়িয়ে দিয়ে জিজ্ঞাসাবাদের ভঙ্গিতে চ্যান্সেলর মারকেল ‘নার্ভাস’ ট্রাম্পের সঙ্গে কথা বলছেন। এ ছবিটিই মুহূর্তের মধ্যে এবারের জি-৭ সম্মেলনের প্রতীক হয়ে অনলাইনজুড়ে ছড়িয়ে পড়ে। ফেসবুক, টুইটার, ইন্সটাগ্রামসহ বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ছেয়ে যায় নানান ধরণের রসিকতা ও বিদ্রুপে। কেউ কেউ বলছেন, দুষ্টু ছাত্র ট্রাম্পকে শিক্ষক মেরকেলের বকা দেওয়ার শিল্পিত উপস্থাপন এ ছবি। কারও কারও মতে, এটি হতে পারে ‘বডি ল্যাঙ্গুয়েজ’ শিরোনামের চিত্রকর্মের প্রকৃষ্ট উদাহরণ।

ইতালির প্রধানমন্ত্রী গিউসেপ কন্তেও কাছাকাছি মুহূর্তের একটি ছবি দিয়েছেন। সেখানে অবশ্য উত্তেজনা তেমন নেই। সব শেষের এ ছবিটা প্রকাশ করে আয়োজক দেশ কানাডা। জি-৭ সম্মেলনের এবারের চেয়ারম্যান এবং শান্তি প্রতিষ্ঠায় দীর্ঘদিনের অভিজ্ঞতাসম্পন্ন কানাডার ছবিতে মার্কিন প্রেসিডেন্টকে অন্যদের সঙ্গে সমানতালে মিশতে দেখা যাচ্ছে। বিরোধ মেটাতে সবার আন্তরিকতাও বোঝা যাচ্ছে। ওর মাঝেই অভিভাবকের মতো অবস্থান ট্রুডোর, দ্বন্দ্ব মেটাতে তিনিই যেন রেফারিং করছেন।



মন্তব্য চালু নেই