মেইন ম্যেনু

তরুণ প্রজন্মের মানসিক চাপ বাড়াচ্ছে ‘সোশ্যাল মিডিয়া’

প্রায় এক হাজার সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহারকারীকে নিয়ে একটি সমীক্ষা চালিয়েছিল এক বেসরকারি সংস্থা। তাতে দেখা যাচ্ছে, তরুণ প্রজন্মের একটি বড় অংশের মানসিক চাপের কারণ সোশ্যাল মিডিয়া। সেখানে অতিরিক্ত সময় কাটানোয় ৯০ শতাংশ ঘুমের সমস্যায় ভোগেন। কম ঘুমের জেরে তৈরি হচ্ছে মানসিক চাপ। যার মধ্যে ৬০ শতাংশ সম্পর্ক হারানো বা সামাজিক সম্মান হারানোর মতো বিভিন্ন আশঙ্কায় ভুগছেন। আবার ১৪ শতাংশ সেই মানসিক চাপ কমাতে অতিরিক্ত তামাকজাত দ্রব্যে অভ্যস্ত হয়ে উঠছেন। মোট ব্যবহারকারীর ৮৪ শতাংশ মনে করছেন, তাদের প্রতিদিনের জীবনে পারিবারিক সম্পর্কে কুপ্রভাব ফেলছে সোশ্যাল মিডিয়া।

‘সোশ্যাল মিডিয়া দৈনন্দিন জীবনের অংশ। ব্যক্তিত্ব বিকাশে এই মাধ্যমের ভূমিকা রয়েছে অবশ্যই। কিন্তু অতিরিক্ত সময় কাটানোর জেরে কম ঘুম, ক্লান্তি ও যেকোনো বিষয়ে অকারণ উদ্বেগ তৈরি হচ্ছে। কমে যাচ্ছে সিদ্ধান্ত নেওয়ার ক্ষমতা।’ সমীক্ষায় উঠে আসছে, মানসিক চাপে ভুক্তভোগীদের বড় অংশ চাপ কমানোর জন্যে বিজ্ঞাপন দেখে পণ্য ব্যবহার করছেন, কেউ কেউ মদ বা তামাকজাত দ্রব্যের উপরে নির্ভরশীল হয়ে পড়ছেন।

কিন্তু সোশ্যাল মিডিয়ায় অতিরিক্ত সময় কাটানো কেনো মানসিক চাপ বাড়াচ্ছে? প্রতিযোগিতার যুগে সোশ্যাল মিডিয়া আরো বেশি ভোগবিলাসী করে তুলছে। ভার্চুয়াল বন্ধুর দামি গাড়ি বা সাজানো বাড়ির ছবি কখনো জাগাচ্ছে ঈর্ষা। কখনো আবার কাল্পনিক শ্রেষ্ঠত্বের গর্ব থেকে তৈরি হয় স্নায়ুজনিত উত্তেজনা। কিন্তু সোশ্যাল মিডিয়ার এই অসীম আকারের সঙ্গে মানাতে না পারার জেরে নানা সমস্যা তৈরি হচ্ছে।

আশপাশের সম্পর্কগুলোকে গুরুত্ব দেওয়ার মাধ্যমেই এর সমাধানের পথ মিলতে পারে, এমনই মনে করেন মনোরোগ চিকিৎসকদের। তারা জানাচ্ছেন, তরুণ প্রজন্ম মাঠে নেমে খেলার সঙ্গে অভ্যস্ত হোক। নিয়মিত বই প়ড়া, পরিবারের সঙ্গে বসে আড্ডা দেওয়া কিংবা বন্ধুদের সঙ্গে গান গেয়ে সময় কাটানো ভার্চুয়াল জগতের নেশা ছাড়াতে সাহায্য করবে। মনোরোগ চিকিৎসক জয়রঞ্জন রামের কথায়, ‘সোশ্যাল মিডিয়ার নেশাকে ‘আচরণগত আসক্তি’ বলা হয়। অন্যান্য নেশা থেকে বেড়োনোর জন্য যেমন চিকিৎসকের সাহায্য নেওয়া যায়, এ ক্ষেত্রেও সেটা করা যেতে পারে। এই নেশা মনের পক্ষে ক্ষতিকর। মানবিক সম্পর্ককে অস্ত্র করেই এর থেকে বেড়োনো যেতে পারে।’

তথ্য : এবিপি






মন্তব্য চালু নেই