মেইন ম্যেনু

পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী হচ্ছেন কুলসুম!

পাকিস্তানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরীফের শূন্য আসনে আগামী ১৭ সেপ্টেম্বর উপনির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। এই নির্বাচনে প্রার্থী হচ্ছেন নওয়াজ শরীফের স্ত্রী বেগম কুলসুম নওয়াজ। তিনি শুক্রবার উপনির্বাচনের মনোনয়নপত্র কিনেছেন। এর মধ্য দিয়ে বেগম কুলসুম দীর্ঘদিন পর আবার রাজনীতিতে ফিরছেন।

ধারণা করা হচ্ছে, উপনির্বাচনে বিজয়ী করার পর স্ত্রীকে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী পদে দলীয় মনোনয়ন দিবেন নওয়াজ শরীফ। সেটি হলে আগামী জাতীয় নির্বাচনের আগ পর্যন্ত দেশটির প্রধানমন্ত্রী হতে যাচ্ছেন বেগম কুলসুম নওয়াজ। খবর ডন অনলাইন ও বিবিসির।

গত ২৮ জুলাই সুপ্রিমকোর্টের রায়ে নওয়াজ শরীফ অযোগ্য ঘোষিত হলে ন্যাশনাল অ্যাসেম্বলির ১২০ নম্বর আসনটি শূন্য হয়।

এরপর নওয়াজ তার আসনে (লাহোর-৩) উপনির্বাচনে কাকে মনোনয়ন দিচ্ছেন তা নিয়ে গুঞ্জন শুরু হয়।
শেষ পর্যন্ত পিএমএল-এন কুলসুম নওয়াজকে উপনির্বাচনের প্রার্থী মনোনীত করে।

এ নির্বাচনে অন্তত ৩৫ জন প্রার্থী মনোনয়নপত্র গ্রহণ করেছেন। এদের মধ্যে আসিফ কিরমানি, ক্যাপ্টেন সফদার এবং সাবেক ক্রিকেটার ইমরান খানের পাকিস্তান তেহরিক-ই ইনসাফ পার্টির (পিটিআই) মনোনীত প্রার্থী ডা. ইয়াসমিন রশিদও রয়েছেন।

জানা গেছে, বেগম কুলসুম নওয়াজ ইতোমধ্যে মনোনয়নপত্রে স্বাক্ষর করেছেন। শনিবার তিনি এটি জমা দিবেন।

এর আগে ১৯৯৯ সালে পাকিস্তানের সাবেক স্বৈরশাসক জেনারেল পারভেজ মোশাররফের নেতৃত্বাধীন সামরিক অভ্যুত্থানের সময় কারাবন্দি নওয়াজের অনুপস্থিতিতে দলের নেতৃত্ব দিয়েছিলেন স্ত্রী কুলসুম নওয়াজ।

১৯৯৯ থেকে ২০০২ সাল পর্যন্ত তিনি পিএমএল-এনের প্রেসিডেন্ট ছিলেন। তবে নওয়াজের মেয়ে মরিয়ম এবং স্ত্রী কুলসুম দেশটির কোনো নির্বাচনেই এখন পর্যন্ত অংশ নেননি।

এর আগে নওয়াজ তার ছোট ভাই পাঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী শাহবাজ শরীফকে প্রধানমন্ত্রী করবেন বলে দলের এক বৈঠকে সিদ্ধান্ত হয়।

কিন্তু তিনি জাতীয় পরিষদের সদস্য না হওয়ায় ঝামেলা দেখা দেয়। পরে তাকে নওয়াজের আসনে নির্বাচন করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

তবে দলের জ্যেষ্ঠ নেতারা এতে ঝুঁকির কথা জানালে শাহবাজ শরীফের নাম প্রত্যাহার করে নেওয়া হয়। সব জল্পনা-কল্পনার অবসান ঘটিয়ে প্রার্থী হলেন বেগম কুলসুম নওয়াজ।






মন্তব্য চালু নেই