মেইন ম্যেনু

ববির আমরণ অনশন কর্মসূচি স্থগিত

বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের (ববি) শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের আমরণ অনশনের তৃতীয় দিনে শুক্রবার সন্ধ্যায় বিশ্ববিদ্যালয় বাস্তবায়ন কমিটির হস্তক্ষেপে সোমবার পর্যন্ত স্থগিত করা হয়। তবে আমরণ অনশন ব্যতিত আন্দোলনের অন্যান্য কর্মসূচি চালু থাকবে বলে জানিয়েছেন শিক্ষার্থীরা।

সন্ধ্যার পর ববি বাস্তবায়ন আন্দোলন কমিটির আহ্বায়ক বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ প্রফেসর মোহাম্মদ হানিফের নেতৃত্বে সুশীল সমাজের নেতৃবৃন্দ অসুস্থ শিক্ষার্থীদের সাথে আলোচনায় বসেন। এসময় তাদের আন্দোলনের সাথে একাত্মতা পোষণ করে সোমবার বিকেল ৫টা পর্যন্ত স্থগিত রাখার আহ্বান জানান।

নেতৃবৃন্দ বলেন, এরমধ্যে তারা সমস্যা সমাধানে উদ্যোগ নিবেন। তবে ভিসির অপসারণ অথবা পূর্ণ মেয়াদের ছুটি না হলে পুনরায় কঠোর কর্মসূচি পালনের ঘোষণা দেন অনশনকারীরা।

এসময় উপস্থিত ছিলেন বরিশাল শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান প্রফেসর মো: ইউনুস, বরিশাল প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি ও সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব এসএম ইকবাল, বিএম কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ সম ইমানুল হাকিম, সরকারি মহিলা কলেজের অধ্যক্ষ মোতালেব হাওলাদার, ইসলামিয়া কলেজের অধ্যক্ষ মহসিন উল ইসলাম হাবুল, বিএম কলেজের সাবেক ভিপি আনোয়ার হোসাইন, বিশ্ববিদ্যালয় বাস্তবায়ন আন্দোলন কমিটির সদস্য বাহাউদ্দিন গোলাপ প্রমূখ।

এরআগে দুপুরে অনশনরত শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের খোঁজ খবর নেন শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক ডাঃ বাকির হোসেন, নারী নেত্রী প্রফেসর শাহ সাজেদা, বরিশাল মেট্রোপলিটন প্রেসক্লাব সভাপতি কাজী আবুল কালাম আজাদ।

প্রফেসর মোঃ হানিফ জানান, সোমবার পর্যন্ত অনশন কর্মসূচি স্থগিত করেছে আন্দোলনকারীরা। আমরা মঙ্গলবার পর্যন্ত সময় চেয়েছি। এই সমস্যার সমাধান এই সময়ের মাঝেই আশা করি হবে।

ববি শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক আবু জাফর জানান, সোমবার পর্যন্ত অনশন কর্মসূচি স্থগিত করা হয়েছে। তবে অন্যান্য কর্মসূচি চলমান থাকবে। আর এই সময়ের মধ্যে ভিসিকে অপসারণ করা না হলে কঠোর আন্দোলনে যাওয়া হবে মঙ্গলবার থেকে।

তিনি আরো জানান, শিক্ষক সমিতির আহ্বানে সারা দিয়ে বুধবার থেকে এ পর্যন্ত ৫৬ জন শিক্ষক তাদের স্ব-স্ব প্রশাসনিক পদ (প্রভোস্ট, প্রক্টর, চেয়ারম্যানসহ বিভিন্ন পদ) থেকে পদত্যাগের বিষয়ে সম্মতি জ্ঞাপন করেছন এবং তারা এরইমধ্যে তাদের পদ থেকে সরে দাঁড়িয়েছেন। এদিকে এর আগে বুধবার থেকে টানা তিনদিনের অনশন কর্মসূচিতে ২৫ জন শিক্ষক ও শিক্ষার্থী অসুস্থ হয়ে পড়েছেন বলে জানা গেছে।

এদের মধ্যে বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষক সমিতির সহসভাপতি কায়ছার আহম্মেদ জয়, সাধারণ সম্পাদক আবু জাফর মিয়া, ইংরেজী বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মিজানুর রহমান, বাংলা বিভাগের সহকারী অধ্যাপক সঞ্জয় কুমার সরকারসহ শিক্ষার্থীদের হাসপাতালে ও ববির মেডিকেল সেন্টারে ভর্তি করা হয়েছে।

এদিকে ববির শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের যৌথ আন্দোলনে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের (ডাকসু) নেতৃবৃন্দর সংহতি প্রকাশ করার কৃতজ্ঞতা ও ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেছেন শিক্ষার্থীরা।

শিক্ষার্থী লোকমান হোসেন বলেন, বৃহস্পতিবার ডাকসুর সভাপতি ও সম্পাদক স্বাক্ষরিত এক প্রতিবাদ লিপিতে আমাদের আন্দোলনে সংহতি প্রকাশ করেছেন নেতৃবৃন্দ। পাশাপাশি তারা শান্তিপূর্ণ আন্দোলনকারীদের (ববি শিক্ষার্থীদের) সাথে একাত্মতা প্রকাশ করেছেন এবং উদ্ভুত সমস্যার সমাধানে দ্রুততম সময়ে যথাযথ কর্তৃপক্ষের কার্যকর ব্যবস্থা নেয়ার উদাত্ত আহ্বান জানিয়েছেন। এজন্য আমরা তাদের প্রতি ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি।

উল্লেখ্য, ২৬ মার্চ থেকে টানা উপাচার্য বিরোধী আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছে শিক্ষার্থীরা। এরপর আন্দোলনের সাথে একাত্মতা পোষণ করে শিক্ষক, কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা। আন্দোলনের ৩০তম দিনে আমরণ অনশন কর্মসূচির ডাক দেয় আন্দোলনকারীরা।



মন্তব্য চালু নেই