মেইন ম্যেনু

বিশ্বকাপে তিন টন খাবার খাবেন মেসিরা!

অপেক্ষার প্রহর শেষ হতে চলেছে শিগগিরই। ক্ষণগণনার পালা শেষ করে ১৪ জুন মস্কোর লুঝনিকি স্টেডিয়ামে শুরু হতে যাচ্ছে ফিফা ফুটবল বিশ্বকাপের ২১তম আসর। মিশন বিশ্বকপা সামনে রেখে এরইমধ্যে রাশিয়া পৌঁছে গেছে লিওনেল মেসির আর্জেন্টিনা। আর সঙ্গে নিয়ে গেছেন প্রচুর খাবার ও পছন্দের শেফ।

জানা গিয়েছে, তিন টন খারাব নেওয়া হয়েছে আর্জেন্টিনা দলের জন্য। শুধু তাই নয়, পছন্দের শেফ নিয়েও এসেছেন মেসিরা। ১৬ জুন মস্কোর স্পার্টাক স্টেডিয়ামে আইসল্যান্ডের বিপক্ষে বিশ্বকাপ অভিযান শুরু করছে আর্জেন্টিনা।

ভালো খাবারই মাঠে মেসিদের ভালো পারফরম্যান্সের রসদ। এমনটাই মনে করে আর্জেন্টাইন থিঙ্কট্যাঙ্ক। বিশ্বকাপে অভিযান শুরুর আগে বর্ননিস্টিতে বেস ক্যাম্প করবে আর্জেন্তাইন খেলোয়াড়রা। রাশিয়ায় আর্জেন্টিনার অ্যাম্বাসাডর রিকার্ডো লাগোরিও জানান, ‘পছন্দের খাবার নিয়েই রাশিয়ায় খেলতে এসেছে মেসিরা। আর্জেন্টিনার ট্র্যাডিশনার খারাব যেমন বিফ, পর্ক-সহ মোট তিন টন খাবার এবং পছন্দের চা নিয়ে বিশ্বকাপ খেলতে এসেছে মেসিরা।

আর্জেন্টিনা ফুটবল অ্যাসোসিয়েশনের তরফে জানানো হয়, জাতীয় দলের বেশিরভাগ খেলোয়াড়ই ঘরোয়া খাবার খেতে পছন্দ করে। এর মধ্য রয়েছে বিফ, পর্ক, কনডেনসড মিল্ক এবং মাতে চা বেশিরভাগ খেলোয়াড়ের পথম পছন্দ৷ গ্রুপ ডি-তে আর্জেন্টিনার সঙ্গে রয়েছে আইসল্যান্ড, ক্রোয়েশিয়া এবং নাইজেরিয়া। মেসিরা গ্রুপের তিনটি ম্যাচ খেলবে যথাক্রমে মস্কো, নিজনি নভগোরড ও সেন্ট পিটার্সবার্গে। দ্বিতীয় ম্যাচ ২১ জুন ক্রোয়েশিয়ার বিরুদ্ধে নিজনি নভগোরড স্টেডিয়ামে। আর মেসিদের গ্রুপের শেষ ম্যাচ সেন্ট পিটার্সবার্গে নাইজেরিয়ার সঙ্গে।

শুধু আর্জেন্টাইন খেলোয়াড়রাই নয়, গতবারের চ্যাম্পিয়ন জার্মানির ফুটবলরাও পছন্দের খাবার নিয়ে বিশ্বকাপ খেলতে এসেছে জোয়াকিম লো-এর ছেলেরা। জার্মান নিউজপেপার বিল্ডের মতে, ইউপোরিয়ান দেশের সমস্ত রকম ফ্রেস খাবার নিষিদ্ধ রাশিয়ায়। তাই জার্মান দলের শেফ ড্রাই ফুড অথবা ফ্রোজেন ফুড নিয়ে এসেছে জার্মান দলের শেফ। জার্মানির সঙ্গে গ্রুপ এফ-তে রয়েছে মেক্সিকো, সুইডেন ও দক্ষিণ কোরিয়া। জার্মানির প্রথম ম্যাচ ১৭ জুন মস্কোর লুজনিকি স্টেডিয়ামে। প্রতিপক্ষ মেক্সিকো।



মন্তব্য চালু নেই