মেইন ম্যেনু

বিশ্বের প্রথম রঙিন এক্স-রে

মানুষের শরীরে এই প্রথম রঙিন ও থ্রিডি এক্স-রে করলেন নিউজিল্যান্ডের বিজ্ঞানীরা। এ কাজে তারা এমন এক প্রযুক্তি ব্যবহার করেছেন, যা রোগ শনাক্তকরণে উন্নতি আনবে। এ প্রযুক্তি সরবরাহ করে ইউরোপিয়ান অর্গানাইজেশন ফর রিসার্চ বা সংক্ষেপে সার্ন।

বিবৃতিতে সার্ন-এর দাবি, এই রঙিন এক্স-রে প্রযুক্তিতে আরও স্পষ্ট ও পরিষ্কার ছবি পাওয়া যাবে। যা ডাক্তারদের রোগ নির্ধারণে বিশেষ সহযোগিতা করবে।

সার্ন বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিতে তাদের অবদানের জন্য বিখ্যাত। তারা এই রঙিন এক্স-রে তৈরি করেছেন সাধারণ সাদাকালো এক্স-রে প্রযুক্তির ওপর ভিত্তি করেই। সার্নের সবচেয়ে বিখ্যাত যন্ত্র, লার্জ হ্যাড্রন কলাইডারের একটি অংশের প্রযুক্তি ব্যবহার করে তৈরি হয়েছে এই রঙিন এক্স-রে।

সার্নের এই প্রযুক্তিকে বলা হচ্ছে মেডিপিক্স। এটি একটি ক্যামেরার মতো কাজ করছে। এটি প্রত্যেকটি আণবিক কণাকে শনাক্ত ও গুনতে পারছে। যখন শাটার খোলা হচ্ছে, তখন কণা ও পিক্সেলগুলো একে অপরের সঙ্গে ধাক্কা খাচ্ছে। এতে যে ছবি উঠছে তা হাই রেজুলেশন ও হাই কন্ট্রাস্টের।

সার্ন জানিয়েছে, এই পদ্ধতিতে তোলা ছবিতে খুব সহজেই হাড়, পেশি ও কার্টিলেজকে পৃথক করা যাচ্ছে। সঠিকভাবে জানা যায়, ক্যান্সার আক্রান্ত টিউমারের আকার ও অবস্থান।

সার্নের এই প্রযুক্তিকে বাণিজ্যিকভাবে কাজে লাগাচ্ছেন নিউজিল্যান্ডের কোম্পানি মারস বায়োইমেজিং। তাদের এই কাজে সাহায্য করছে ইউনিভার্সিটি অব ওটাগো এবং ইউনিভার্সিটি অব ক্যান্টারবুরি।

সূত্র: এএফপি



মন্তব্য চালু নেই