মেইন ম্যেনু

বোমা হামলায় শেখ সেলিমের জামাতার দুই পা ড্যামেজ

শ্রীলংকায় সিরিজ বোমা হামলায় অল্পের জন্য প্রাণে রক্ষা পেয়েছেন আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য শেখ ফজলুল করিম সেলিমের জামাতা মশিউল হক চৌধুরী প্রিন্স। তবে তার দুটি পা ড্যামেজ (অকেজো) হয়ে গেছে। তিনি শ্রীলংকার একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। এ হামলায় প্রাণ হারিয়েছে তার (মশিউল) ছেলে জায়ান চৌধুরী।

সোমবার বেলা সাড়ে ১১টায় শেখ সেলিমের বনানীর বাসা থেকে বের হয়ে এসে সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন সাবেক স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায়মন্ত্রী খন্দকার মোশাররফ হোসেন। এ সময় সাবেক সংস্কৃতিবিষয়ক মন্ত্রী আসাদুজ্জামান নুর, সাবেক নৌপরিবহনমন্ত্রী শাজাহান খান উপস্থিত ছিলেন।

খন্দকার মোশাররফ বলেন, ‘শেখ সেলিমের জামাতা খুব বাজেভাবে আহত হয়েছেন। তার দুটো পা ড্যামেজ (অকেজো) হয়ে গেছে। অন্তত ১৫ দিন না গেলে তাকে হাসপাতাল থেকে মুভ করানো সম্ভব হবে না।’

তিনি বলেন, নাশতা করার জন্য জামাতা এবং তার ছেলে জায়ান চৌধুরী ওই হোটেলে পৌঁছেছিলেন। হোটেলের নিচে আত্মঘাতী বোমা বিস্ফোরণে জায়ান নিহত হয়।

এদিকে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে ব্রুনাই সফরে থাকা শেখ সেলিমের ছেলে শেখ ফাহিম ভাগ্নের লাশ আনতে শ্রীলংকা গেছেন। অপর ছেলে শেখ নাইম তার মাকে সঙ্গে নিয়ে শ্রীলংকা পৌঁছেছেন।

প্রসঙ্গত শ্রীলংকায় রোববারের ভয়াবহ সিরিজ বোমা হামলায় অন্তত ২৯০ জন নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন ৫০০ জনের বেশি মানুষ। বোমা হামলার ঘটনায় এ পর্যন্ত ২৪ জনকে আটক করা হয়েছে। তবে কারা হামলা চালিয়েছে তা এখনও চিহ্নিত করতে পারেনি দেশটির সরকার।

সকালে দ্বীপরাষ্ট্রটির রাজধানী কলম্বো এবং শহরতলির তিনটি গির্জা ও দেশের বড় তিনটি হোটেলে এ হামলা হয়। পরে আরও দুটি স্থানে হামলা হয়। গতকাল ছিল খ্রিস্টান সম্প্রদায়ের অন্যতম বড় উৎসব ইস্টার সানডে। হামলার সময় তিন গির্জায় ইস্টার সানডের প্রার্থনা চলছিল।

নিহতদের মধ্যে রয়েছে আওয়ামী লীগ নেতা শেখ ফজলুল করিম সেলিমের ৮ বছর বয়সী নাতি জায়ান চৌধুরী। আহত শেখ সেলিমের জামাতা মশিউল হক চৌধুরী প্রিন্স কলম্বোর একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

কলম্বোর একটি পাঁচতারকা হোটেলে দুই ছেলে ও স্বামীকে নিয়ে ছিলেন শেখ সেলিম এমপির মেয়ে শেখ আমেনা সুলতানা সোনিয়া। সেখানেই এই নৃশংস ঘটনা ঘটে।



মন্তব্য চালু নেই