মেইন ম্যেনু

ব্রেইন স্ট্রোকের ঝুঁকি বাড়ায় অপরিষ্কার দাঁত!

বিশ্বের প্রায় ২ কোটি মানুষ প্রতি বছর ব্রেইন স্ট্রোকে আক্রান্ত হন। দিনের পর দিন এই হার বেড়ে চলেছে। আন্তর্জাতিক স্নায়ু বিশেষজ্ঞরা জানান, পৃথিবীর প্রায় সর্বত্র ব্রেইন স্ট্রোকে আক্রান্তের সংখ্যা খুব দ্রুত বৃদ্ধি পাচ্ছে।

ব্রেইন স্ট্রোক হওয়ার নানা কারণ রয়েছে। তন্মেধ্যে মস্তিষ্কের রক্ত সঞ্চালনে বাধার সৃষ্টি হলে ব্রেইন স্ট্রোক হয়। আধুনিক চিকিৎসা বিজ্ঞান বলছে, জীবনযাত্রায় পরিবর্তনের মাধ্যমে সহজেই ব্রেইন স্ট্রোক ঠেকানো সম্ভব।

সাম্প্রতিক একটি গবেষণায় স্ট্রোকের একটি নতুন কারণ বের হয়ে এসেছে। এতে বলা হয়েছে, দাঁত অপরিষ্কার থাকলে ব্রেইন স্ট্রোকের ঝুঁকি বাড়ে। জাপানের হিরোশিমা বিশ্ববিদ্যালয়ের একদল গবেষক এমনটিই দাবি করেন।

গবেষণার ফল প্রকাশে তারা জানান, দাঁত অপরিষ্কার থাকলে দাঁতের ফাঁকে ব্যাকটেরিয়া জন্মায়। আর এসব ব্যাকটেরিয়া দাঁত ক্ষয়ের পাশাপাশি মস্তিষ্কের শিরায় রক্ত সঞ্চালনের পথে বাধা হয়ে দাঁড়ায়। এতে করে মস্তিষ্কে পরিমিত রক্ত সঞ্চালন হয় না। ফলে স্ট্রোকের আশঙ্কা বেড়ে যায়।

৩৫৮ জন রোগীর উপর গবেষণা চালিয়ে তারা এই সিদ্ধান্তে পৌঁছেছেন, যাদের অধিকাংশের বয়স ৫০ থেকে ৬০ বছরের মধ্যে।

কাজের চাপ বা দেরিতে ঘুম থেকে ওঠার কারণে অনেক সময়েই বেশি হলে এক-দেড় মিনিট দাঁত ব্রাশ করি আমরা। ডেনটিস্টরা বলেন, দুই থেকে তিন মিনিট ধরে দাঁত ব্রাশ করা সবচেয়ে ভালো। দাঁত ব্রাশের সময় আমরা কিছু ভুল করি, যার কারণে দাঁত ক্ষতিগ্রস্ত হয়।

ব্রাশ করার সময় যে ভুলগুলো আমরা করে থাকি:

১. ভালো করে দেখি না

দাঁত ব্রাশের সময় আমরা সাধারণত আয়নার দিকে ভালো করে খেয়াল করি না। অধিকাংশ সময় মাড়ি এবং জিহ্বা পরিষ্কারের কথা ভুলে যাই।

২. এলোপাতাড়ি ব্রাশ করা

আমরা অনেকেই এলোপাতাড়ি দাঁত ব্রাশ করি বা বুঝি না কীভাবে সঠিক নিয়মে দাঁত ব্রাশ করতে হয়। এর ফলে দাঁত নাজুক ও দুর্বল হয়ে পড়ে।

৩. জোরে ব্রাশ করা

অনেকে খুব শক্তভাবে বা জোরে দাঁত ব্রাশ করে থাকেন। নিয়মিত এই চাপের ফলে দাঁতের ওপরের এনামেল ক্ষয়ে গিয়ে ডেনটিন বেরিয়ে আসে। এ

৪.ভুল ব্রাশ নির্বাচন

কেনার আগে অবশ্যই দেখে নিন ব্রাশটি নরম কি না। তবে গবেষকরা সতর্ক করে বলেছেন, সঠিক নিয়মে দাঁত ব্রাশ করা না হলে নরম ব্রাশও ব্যাকটেরিয়া রোধ করতে পারে না। তাই কোন ব্র্যান্ডের ব্রাশ কিনবেন এ বিষয়ে চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে পারেন।

৫. দীর্ঘদিন একই ব্রাশ ব্যবহার

শুনতে অদ্ভুত শোনালেও এটাই সত্যি যে ট্রুথব্রাশই হতে পারে জীবাণুর স্বর্গ। এ কারণেই দীর্ঘদিন একই ব্রাশ ব্যবহার করা ঠিক নয়। কেননা ব্রিসলের মধ্যে ব্যকটেরিয়া বাসা বাঁধতে পারে। এর ব্যবহারে দাঁতের ক্ষতি হয়।

৬. ভুল টুথপেস্টের ব্যবহার

বেকিং সোডা আছে এমন টুথপেস্ট ব্যবহারে দাঁতের দাগ দূর হয়, তবে এটি কখনো কখনো এনামেলের জন্য ভালো নাও হতে পারে।

৭. ভালোভাবে ধুতে হবে

দাঁত ব্রাশের পর অনেকেই তাড়াহুড়ো করে কুলি করেন। ফলে মুখের ব্যাকটেরিয়া মুখেই থেকে যায়। তাই ব্রাশের পর ভালোভাবে পানি দিয়ে মুখ ধুতে হবে।

সূত্র: জিনিউজ



মন্তব্য চালু নেই