মেইন ম্যেনু

মদনে লাথি মেরে গর্ভপাতের অভিযোগ, দুই আসামি আটক

মদন (নেত্রকোনা) প্রতিনিধি : নেত্রকোনার মদনে গর্ভবতী নারীকে পেটে লাথি মেরে গর্ভপাত করার অভিযোগে দুই আসামিকে সোমবার রাতে নিজ বাড়ি থেকে পুলিশ আটক করে থানা নিয়ে আসে। ঘটনাটি ঘটেছে সোমবার রাতে উপজেলার ফতেপুর ইউনিয়নের আগপাড়া গ্রামে।

অভিযোগে জানা যায়, উপজেলার ফতেপুর গ্রামের গর্ভবতী রাহুমা আক্তারকে বাচ্ছাদের ঝগড়াকে কেন্দ্র করে এক মাস আগে স্বামী মোনায়েম খানের ভাই-বোন ও তাদের সন্তানরা তাকে বেধড়ক মারপিট ও পেটে লাথি মারে। লোকজন দ্রæত মদন হাসপাতালে নিয়ে এলে কর্তব্যরত চিকিৎসক রাহুমাকে ময়মনসিংহ হাসপাতালে প্রেরন করেন। দীর্ঘ ২০ দিন চিকিৎসা শেষে বাড়ি এলে সোমবার রাতে তার ৪ মাসের গর্ভ নষ্ট হয়। এ ব্যাপারে রাহুমা আক্তার সোমবার ৬জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ এনে মৌখিক ভাবে মদন থানায় অভিযোগ করলে পুলিশ সোমবার রাতে মোনায়েমের ভাগিনা আজাহান ও শাহজাহানকে নিজ বাড়ি আগপাড়া থেকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানায় নিয়ে আসে। ৪ মাসের গর্ভপাতের ছেলে বাচ্ছাটিকে বাড়ির পাশে কবর দেওয়া হয়েছে।

এ ব্যাপারে রাহুমা আক্তার জানান, এক মাস আগে আমার ছোট ছেলে ইমন(৩)এর সাথে ভাগিনা শাহজাহানের ছেলে মোস্তাফিজ(৫) খেলাধুলা নিয়ে ঝগড়া হয়। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে আয়ুব খান, জাহানারা বেগম সামছুরন্নাহার, আন্না বেগম, শাহজাহান, আজহান, আমাকে বেধরক মারপিট ও পেটে লাথি মারে। এতে আমার ৪ মাসের সন্তান নষ্ট হয়েছে।

মদন থানার ওসি মোঃ শওকত আলী, আজহান ও শাহজানকে আটক করার ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, বাদীর লিখিত অভিযোগ পেলে মামলা নেয়া হবে।



মন্তব্য চালু নেই