মেইন ম্যেনু

মধ্যরাতের অনিদ্রা দূর করার ১০ উপায়

আপনি যদি প্রায়ই মধ্যরাতে জেগে ওঠেন তার মানে আপনি প্রতিদিন পর্যাপ্ত পরিমাণে (৭-৯ ঘণ্টা) ঘুমাতে পারছেন না। একে বলা হয় মধ্য রাতের অনিদ্রা।

যদি একনাগাড়ে তিন দিন মধ্যরাতে আপনার ঘুম ভেঙে যায় এবং আপনি ৩০ মিনিট করে জেগে থাকেন তাহলে বুঝতে হবে মারাত্মক কোনো সমস্যা হয়েছে।

অনিদ্রায় আক্রান্ত লোকদের শুধু ঘুমাতেই সমস্যা হয় এমন নয়। বরং ঘুমানোর পর বার বার ঘুম ভেঙে যাওয়ার মতো সমস্যাও দেখা দেয়।

আসুন জেনে নেওয়া যাক মধ্যরাতের অনিদ্রার কারণ এবং প্রতিকারগুলো।

১. ঘুমের মধ্যে দম বন্ধ হয়ে যাওয়া
রাতে ঘুমের মধ্যে হঠাৎ করেই শ্বাস বন্ধ হয়ে গিয়ে পুনরায় শুরু হওয়ার মতো ঘটনা ঘটলে ঘুম ভেঙে যায়। গলার টনসিলগুলো বড় হয়ে গেলে বা দেহের ওজন বেড়ে গেলে এমনটা হয়। কিন্তু আপনি হয়তো বিষয়টি বুঝতে পারছেন না।

২. বদহজম
পেটে খাবার বদহজম হলে মধ্যরাতে আপনার ঘুম ভেঙে যেতে পারে। বিশেষত আপনি যদি ঘুমানোর আগে বেশি খাবার খেয়ে ফেলেন অথবা মদপান করেন তাহলে এমনটা হতে পারে। সুতরাং রাতে ঘুমানোর আগে খাবার খাওয়ার বদঅভ্যাস ত্যাগ করতে হবে এবং রাতে হালকা খাবার খেতে হবে।

৩. মানসিক চাপ
মানসিক চাপের কারণেও আপনার ঘুম নষ্ট হয়ে যেতে পারে। আপনি যদি দিনের শেষভাগে এসে মানসিক অবসাদে আক্রান্ত হন তাহলে সন্ধ্যার দিকে ব্যায়াম করুন।

৪. আলো
অনেকেই আলোর কারণে ঠিকমতো ঘুমাতে পারেন না। সুতরাং রাতে যদি লাইট জ্বালিয়ে রেখেই ঘুমানোর অভ্যাস থাকে আপনার তাহলে যতটুকু আলো থাকলে আপনি ঘুমাতে পারবেন সেভাবে লাইটটি অ্যাডজাস্ট করে নিন।

৫. আওয়াজ
ঘরের ভেতর বা বাইরের কোনো আওয়াজ আপনার ঘুম নষ্ট করতে পারে। আপনি যদি শহরে বসবাস করেন তাহলে আওয়াজের মধ্যেই ঘুমানোর অভ্যাস রপ্ত করে নিতে হবে।

৬. তাপমাত্রা
আপনি যখন ঘুমান তখন আপনার দেহের তাপমাত্রা কমে আসে। কেননা আপনার দেহ শান্ত হয়ে শক্তি পুনরুদ্ধারের কাজ করে ঘুমের মধ্যে। যে ঘরের তাপমাত্রা খুব কম বা খুব বেশি এমন ঘরে ঘুমালে আপনার ঘুমের মান নষ্ট হবে।

৭. আপনার পাশের ব্যক্তিটি
আপনার সঙ্গী বা সঙ্গিনী যদি নাক ডাকে, বা রাতে বারবার ঘুম থেকে জেগে উঠে লাইট অন করে ওয়াশরুমে যায়, আপনি যখন গভীর ঘুমে চলে গেছেন তখন আপনার দেহে হাত রাখে তাতেও আপনি মধ্যরাতের অনিদ্রায় আক্রান্ত হতে পারেন। সুতরাং আপনার যদি বিরক্তিকর জীবন সঙ্গী বা সঙ্গীনি থাকে তাহলে এখনই সময় একা একা ঘুমানোর। আর যাই হোক, ঘুমই তো সবচেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ, তাই না?

৮. ঘুমানোর আগে বেশি পানি পান
মধ্যরাতে পেশাবের বেগ সৃষ্টি হওয়াটা ঘুম ভেঙে যাওয়ার অন্যতম একটি কারণ। সুতরাং রাতে ঘুমানোর অন্তত আধা ঘণ্টা আগে পানি পান করুন।

৯. ঘুমানোর আগে ফোন ব্যবহার
মোবাইলের আলো চোখের মাধ্যমে দেহে প্রবেশ করলে দেহে ঘুমের জন্য সহায়ক মেলাটোনিন হরমোন পর্যাপ্ত পরিমাণে নিঃসরণ বাধাগ্রস্ত হয়। স্মার্টফোন, ইলেকট্রনিক ডিভাইস মুখের খুব কাছে নিয়ে ধরে থাকলে ঘুমে বিশৃঙ্খলা দেখা দেয়। আর মধ্যরাতে ঘুম ভেঙে যায় এ কারণে।

১০. ঘুমানোর আগে মদপান
মদপান করলে প্রাথমিকভাবে আপনার ঘুম আসতে পারে। কিন্তু মদের প্রভাব কেটে গেলে মধ্যরাতে আপনার ঘুম ভেঙে যেতে পারে। সুতরাং মদপানের অভ্যাস ছাড়ুন।

সূত্র: বোল্ডস্কাই






মন্তব্য চালু নেই