মেইন ম্যেনু

মাগুরায় গৃহবধূকে ধর্ষণের সময় দুই যুবক আটক

মাগুরা প্রতিনিধি ঃ মাগুরার শ্রীপুর উপজেলার বরিশাট গ্রামে এক গৃহবধূর শ্লীলতাহানীর পর মোবাইলে ভিডিও চিত্র ধারণের অভিযোগে মামলা হয়ে। মঙ্গলবার ভোরে এ ঘটনা ঘটলেও প্রভাবশালীদের অবৈধ প্রভাবে বিলম্ব হয়ে রাতে মামলা হয়।

মামলার বিবরণে জানা যায় – মঙ্গলবার ভোর বেলা বরিশাট গ্রামে নির্জন রাস্তা দিয়ে একা হেটে যাচ্ছিলেন ওই গৃহবধু। এ সময় বখাটে যুবক রবিউল তার পিছু নেয়। সে তার মুখ চেপে ধরে জোর করে পাশের একটি বাগানে নিয়ে গেলে আনিছ বিশ্বাস (৩০) তাকে ধর্ষন করে। এ ঘটনা মোবাইলে ভিডিও চিত্র ধারন করে তার সহযোগি বখাটে রবিউল (২২)। একপর্যায়ে আশে পাশের লোকজন ঘটনা স্থলে পৌছে মেয়েটিকে উদ্ধার করে ও ওই দুই যুবক কে আটক করে থানায় সোপর্দ করে। ঘটনাটি ধামা-চাপা দেওয়ার জন্য দিনভর নানা নাটকিয়তার পরে অবশেষে ধর্ষক আনিস ও সহযোগী রবিউলের বিরুদ্ধে মামলা নেয় শ্রীপুর থানা পুলিশ। তাদের দুজনের বাড়িই বরিশাট গ্রামে।

ঘটনার শিকার গৃহবধু জানান, স্বামীর সাথে সামান্য মন মালিন্যে তিনি রাগ করে মঙ্গলবার সকালে শ্বশুর বাড়ি শ্রীপুর উপজেলার চর-শ্রীপুর গ্রাম থেকে মাগুরা যাওয়ার উদ্দেশ্যে হেটে বরিশাট গ্রামের পেট্রোল পাম্পের কাছা কাছি পৌছালে ওই যুবক তার বাড়ি ও নাম জিজ্ঞাসা করে। তিনি কোন উত্তর না দিলে বখাটে ওই যুবক তার মুখ চেপে জোর করে বরিশাট গ্রামের শ্মশানের পাশে একটি বাগানে নিয়ে গিয়ে এ ঘটনা ঘটায়।

শ্রীপুর থানার ওসি মো: মহাবুবুর রহমান বিকেলে ধর্ষণের শিকার গৃহবধুটির শ্বশুড় বাড়ি গিয়ে ভিকটিমের কাছে ঘটনা শুনে তার শ্বশুড় বাড়ির লোকজনসহ তাকে থানায় নিয়ে আসেন। ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে ওসি মো: মাহাবুবুর রহমান বলেন, আনিচুর ধর্ষণ করে এবং রবিউল তা মোবাইলে ভিডিও ধারণ করে। আনিচ বরিশাট গ্রামের আজিজ রহমানের ছেলে এবং রবিউল একই গ্রামের সাজ্জাদ হোসেনের ছেলে বলে জানা গেছে। এ ঘটনায় শ্রীপুর থানায় একটি মামলা হয়েছে। আসামীদের জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে।

মাগুরার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার তারিকুল ইসলাম জানান- বুধবার সকালে ভিকটিম কে মাগুরা সদর হাসপাতালে ডাক্তারী পরিক্ষার জন্য নেয়া হয়েছে। আসামীদের রিমান্ডের জন্য আদালতে আবেদন করা হয়েছে।



মন্তব্য চালু নেই