মেইন ম্যেনু

মেয়ে অনার্স শিক্ষার্থী, বাবা দাখিল পরীক্ষার্থী

নীল রঙের ইউনিফর্ম পরা। সবাই বয়সে কিশোর। মনোযোগের সঙ্গে পরীক্ষা দিচ্ছেন তারা। এসময় হঠাৎ দেখা গেল পঞ্চাশোর্ধ এক ব্যক্তিকে। তিনিও পরীক্ষা দিচ্ছেন।

লোকটির নাম শফিকুল ইসলাম। এবার দাখিল পরীক্ষায় অংশ নিয়েছেন তিনি। শনিবার বগুড়ার শেরপুর উপজেলার শালফা টেকনিক্যাল অ্যান্ড বিএম কলেজ কেন্দ্রে বাংলা বিষয়ে পরীক্ষা দিতে দেখা যায় তাকে। অনেকটা নাতি-নাতনির বয়সীদের সঙ্গে পরীক্ষা দিলেও তিনি ছিলেন বেশ উদ্যমী।

কেন্দ্র সূত্রে জানা যায়, শফিকুল ইসলাম ধুনট উপজেলার চৌকিবাড়ি ইউনিয়নের চান্দিয়ার গ্রামের মৃত সোনাউল্লাহ শেখের ছেলে। তার বয়স ৫২ বছর। শফিকুল ইসলাম নিজেকে শিক্ষিত হিসেবে গড়ে তুলতে ২০১৭-১৮ শিক্ষাবর্ষে শেরপুর উপজেলার হাপুনিয়া দাখিল মাদরাসায় লেখাপড়া করে এ বছর দাখিল (ভোকেশনাল) পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করেন।

শফিকুল ইসলাম বলেন, তার তিন মেয়ে। বড় মেয়ে শেরপুর টাউনক্লাব মহিলা অনার্স কলেজে পড়ছেন। মেজো মেয়ে ধুনট উপজেলার বিশ্বহরিগাছা কলেজে এবং ছোট মেয়েও স্কুলে লেখাপড়া করছেন।

তিনি বলেন, আমার মেয়েরা শিক্ষার আলো পেলে আমি কেন বঞ্চিত থাকবো। তাই তাদের অনুপ্রেরণাকে কাজে লাগিয়ে আমি দাখিল পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করছি।

কেন্দ্র সচিব অধ্যক্ষ ইউসুফ আলী বলেন, আমাদের কেন্দ্রে ২১৭ জন এবার পরীক্ষা দিচ্ছেন। তাদের মধ্যে আছেন শফিকুল ইসলাম।



মন্তব্য চালু নেই