মেইন ম্যেনু

এসএসএফের প্রতি প্রধানমন্ত্রী

‘যেন বিচ্ছিন্ন না হয়ে পড়ি, লক্ষ রাখতে হবে’

রাজনীতিবিদ হিসেবে গণমানুষের সঙ্গে যেন বিচ্ছিন্ন না হয়ে পড়েন সেদিকে লক্ষ্য রাখতে স্পেশাল সিকিউরিটি ফোর্সের (এসএসএফ) সদস্যদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

রোববার সকালে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে এসএসএফের ৩২তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর অনুষ্ঠানে যোগ দিয়ে সরকারপ্রধান এ আহ্বান জানান।

রাষ্ট্র ও সরকার প্রধানসহ বিদেশ থেকে আসা গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিদের নিরাপত্তার জন্য ১৯৮৬ সালে গঠিত হয় এসএসএফ। বিদেশ থেকে প্রশিক্ষণ নিয়ে বাহিনীটির সদস্যরা যেমন দক্ষতা অর্জন করেছে, তেমনি অনেক দেশের নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যরা প্রশিক্ষণ নিচ্ছে এসএসএফের কাছে। সংস্থাটির ৩২তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত দরবারে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তাদের কাজের প্রশংসা এবং সন্তোষ প্রকাশ করেন।

শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমার নিরাপত্তায় যারা দায়িত্বরত তাদের নিরাপত্তাটাও আমার কাছে চিন্তার বিষয়। এটা হলো বাস্তবতা। সবসময় ওটাই চিন্তা করি যে, তাদের নিরাপত্তাটা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। সেজন্যই আমরা সবসময় চেষ্টা করেছি, যেহেতু যুগের পরিবর্তন, তার সঙ্গে সঙ্গে তাল মিলিয়ে নতুন নতুন আধুনিক সরঞ্জামাদি ক্রয় করে নিরাপত্তাবেষ্টনীটা যাতে আরো সুরক্ষিত হয়।’

প্রধানমন্ত্রী হিসেবে নিজে যাতে জনবিচ্ছিন্ন না হয়ে পড়েন সে বিষয়টি খেয়াল রেখে এসএসএফের কর্মকর্তাদের নিরাপত্তা দায়িত্ব পালনের আহ্বান জানান শেখ হাসিনা।

শেখ হাসিনা আরো বলেন, ‘তাদের যে ছক বাঁধা থাকে, তাদের যে দায়িত্ব সেখান থেকে তাদের এক চুলও নড়াতে পারি না। মাঝেমাঝে একটু রাগও করি, এটাও ঠিক। কেননা আমরা রাজনীতি করি, আমাদের তো গণমানুষের সঙ্গে যোগাযোগ। তো এটা একটু লক্ষ রাখতে হবে যে, তাদের সঙ্গে এই যোগাযোগটা যেন বিচ্ছিন্ন না হয়। কথাটা আমি সবসময় বলি। দায়িত্ব পালনের ক্ষেত্রে আমি দেখেছি যে, এসএসএফের প্রত্যেকটা সদস্য তাদের পেশাগত দক্ষতা যা তারা অর্জন করেছে সেটা তারা কাজে লাগায় এবং তাদের একটা দৃঢ়তা, শৃঙ্খলাবোধ, সততা, দায়িত্বশীলতা সেগুলি নিষ্ঠার সাথে পালন করে থাকে। মানবিক গুণাবলীর বিষয়গুলো বিবেচনা করতে হবে।’

দেশকে স্বনির্ভর করতে তার সরকারের পরিকল্পনার কথা তুলে ধরার পাশাপাশি প্রধানমন্ত্রীর নিরাপত্তা ক্ষেত্রে তথ্য-প্রযুক্তিকে কাজে লাগানোর তাগিদ দেন শেখ হাসিনা।



মন্তব্য চালু নেই