মেইন ম্যেনু

যে দেশে ১০০ বছর বয়সী মানুষের সংখ্যা ৭০ হাজার

সেঞ্চুরি শব্দটা বললেই একটা দারুণ কিছু বলে মনে হয় । কখনো ক্রীড়াক্ষেত্রে, কখনও সম্মানের ক্ষেত্রে। সেঞ্চুরির মানই আলাদা। আর যখন কোনও মানুষ শতবর্ষে পৌঁছান তাকে ঘিরে উন্মাদনা যেন তুঙ্গে পৌঁছায়।

তবে আমার বা আপনার পরিচিত গণ্ডির মধ্যে কয়জন মানুষ আছেন যারা সেঞ্চুরি পেরিয়েছেন? একেবারেই হাতে গোনা। গুনলেও হঠাৎ একজন বা দু’জনকে পাওয়া যাবে হয়তো। কিন্তু জাপানে কতজন শতবর্ষী মানুষ আছেন জানেন?

চলতি মাসেই সে সংখ্যা পৌঁছেছে ৬৯ হাজার ৭৮৫ অর্থাৎ প্রায় ৭০ হাজার। এটা নিঃসন্দেহে একটি রেকর্ড। এই সেঞ্চুরি করা মানুষদের মধ্যে ৮৮ দশমিক ১ শতাংশই নারী। চিকিৎসাক্ষেত্রে অভাবনীয় উন্নতির জন্যই এমনটা সম্ভব হয়েছে বলে দাবী করছেন চিকিৎসকরা।

গত দু’দশকের চেয়ে গত বছর ২ হাজার ১৪ জন শতবর্ষীর সংখ্যা বেড়েছে। যা এক ধাক্কায় সাতগুণ বেড়েছে। এই জনসংখ্যায় ৬১ হাজার ৪৫৪ জন নারী কিন্তু পুরুষ মাত্র ৮ হাজার ৩৩১। এর মধ্যে রয়েছেন জাপানের প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী ইয়াসুহিরো নাকাসোনে। গত মে মাসে তার বয়স ১০০ বছর হয়েছে। ১৯৭১ থেকে ধারাবাহিক ভাবে চলছে এই গতি। জাপান সরকার আশা করছে এই ধারা চলমান থাকবে।

ন্যাশানাল ইন্সটিটিউট অব পপুলেশন অ্যান্ড সোশ্যাল সিকিউরিটি রিসার্চ জানিয়েছে, আগামী পাঁচ বছরে এই সংখ্যা বেড়ে ১ লাখ হবে এবং ১২ বছরে হবে ১ লাখ ৭০ হাজার।



মন্তব্য চালু নেই