মেইন ম্যেনু

রাজধানীতে ডেঙ্গু আক্রান্ত অন্তঃসত্ত্বা নারীর মৃত্যু

মেধাবী ডিজাইনার ছিলেন তিনি। বিয়ে করেছিলেন মাত্র ১ বছর আগে। আট মাসের অন্তঃসত্ত্বা ছিলেন তিনি। মাত্র আর দুই মাস পর তাদের ঘর আলো করে আসতো প্রথম সন্তান। তার আগেই সকল আশা, সুখের সকল স্বপ্ন ধূলিস্যাৎ হয়ে গেলো। ডেঙ্গু কেড়ে নিলো সম্ভাবনাময় এ প্রাণ! বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিশ্ববিদ্যালয়ে চিকিৎসাধীন অবস্থায় এ নারীর মৃত্যু হয়েছে। তার নাম মালিহা মাহফুজ অন্যা (২৭)। গতরাতে তার মৃত্যু হয় বলে হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে।

মাত্র একবছরের বিবাহীত জীবন! যা অঙ্কুরেই বিনষ্ট হয়ে গেলো!

জানা গেছে, মালিহা মাহফুজ অন্যা বিজিএমইএ বিশ্ববিদ্যালয়ের ফ্যাশন ও টেকনোলজি বিভাগ থেকে পড়াশোনা শেষ করে মেঘনা নিট কম্পোজিট নামে একটি প্রতিষ্ঠানে ডিজাইনার হিসেবে চাকরি করতেন। গতবছরের ২০ জুন তিনি বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন নাফিজ ইমতিয়াজের সঙ্গে। নাফিজ ইমতিয়াজ পেশায় একজন প্রকৌশলী। তারা উত্তরাতে বসবাস করতেন।

মালিহার স্বামী নাফিজ ইমতিয়াজের ফেসবুক পেজ থেকে দেখা যায়, জুলাই মাসের ১৩ তারিখে দুজনের ছবি দিয়ে একটি পোস্ট দেন তিনি। যাতে লেখা ‘ইটস এ বয়’। অর্থাৎ এবার একটি ছেলে আসছে তাদের ঘরে।

সুখের এ সন্তানের জন্ম দিতে পারলেন না মালিহা মাহফুজ অন্যা। ডেঙ্গু কেড়ে নিলো এ পরিবারের সকল সুখ!

মালিহা মাহফুজের একজন সহপাঠী আব্দুল্লাহ আল কেমি জানান, মালিহা মাহফুজ অন্যার জ্বর অনুভূত হয় জুলাই মাসের ২১ তারিখে। ২২ তারিখে তাকে উত্তরার লুভানা হাসপাতালে নেওয়া হয়। সেখানে পরীক্ষার পর ডেঙ্গু ধরা পড়লে সেখানে ভর্তি করা হয়। ২৩ তারিখে অন্যাকে আরও উন্নত চিকিৎসার জন্য ইউনাইটেড হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। কিন্তু সেখানে অন্যার শারীরিক অবস্থার অবনতি হতে থাকলে ২৫ তারিখে তাকে বিএসএমএমইউতে নেওয়া হয়। সেখানে নিবিড় পর্যবেক্ষণে চিকিৎসাধীন অবস্থায় অন্যার মৃত্যু হয় গতরাতে।

মালিহা মাহফুজ অন্যার মৃত্যুর ব্যাপারটি তার পরিবার ও বন্ধু স্বজনদের কেউ মেনে নিতে পারছেন না! অন্যার মৃত্যুর সংবাদ শুনে অনেকেই বিষ্ময় প্রকাশ করে বলেছেন, ‘বিশ্বাস হচ্ছে না!’ কেউ কেউ ফেসবুকে লিখেছেন, ‘এমন প্রতিভাময়, সম্ভাবনাময় তাজা একটি প্রাণ এভাবে আমাদের হারাতে হবে ভাবতে পারছি না! মেনে নিতে পারছি না!’ আরেকজন লিখেছেন, ‘এবার মালিহা মাহফুজ অন্যা চলে গেলেন ডেংগুতে, খুব ভালো মানুষ ছিলেন তিনি! সন্তান সম্ভবা ছিলেন। আল্লাহ তাকে জান্নাত নসীব করুন, আমিন।’



মন্তব্য চালু নেই