মেইন ম্যেনু

রাতারাতি মরদেহ এনে মাজার করে ভণ্ডামি

শরীয়তপুর সদর উপজেলার তুলাসারে ভণ্ড পীরের মাজার, আস্তানা নির্মাণ ও ইসলামবিরোধী কার্যকলাপ বন্ধে থানায় অভিযোগ করেছেন এলাকাবাসী। বুধবার রাতে পালং মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা বরাবর এ অভিযোগ করেন এলাকাবাসী।

এলাকাবাসী ও অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, উপজেলার তুলাসার ইউনিয়নের ৬নং ওয়ার্ডের উত্তর গোয়ালদী গ্রামের শাহজাহান আকনের ছেলে আফজাল হোসেন আকন বাড়িতে গত নভেম্বর মাসের প্রথম দিকে অজ্ঞাত এক ব্যক্তির মরদেহ আনে। পরে রাতের আঁধারে সেই মরদেহ গোপনে দাফন করে। স্থানীয়রা বলছেন সেই মরদেহ কোনো অপরাধী বা দাগী আসামির।

মরদেহ দাফনের পর ওই কবরের পাশে বিভিন্ন গান বাজনার আসর, মাদক সেবন ও ইসলামবিরোধি কার্যকলাপসহ কবর পাকা করে লাল কাপড় দিয়ে ভণ্ডামি ও অসামাজিক কার্যকলাপ করছে আফজাল হোসেন। তাই এই ভণ্ডামি ও অসামাজিক কার্যকলাপ বন্ধ ও ভণ্ড পীরের মাজার, আস্তানা নির্মাণ ভেঙে ফেলার জন্য আইনের আশ্রয় চান এলাকাবাসী।

তবে অভিযুক্ত আফজাল হোসেন আকন বলেন, আমি গুরুর ভক্ত ছিলাম। গুরুর বাড়ি কুমিল্লা জেলায়। গুরু মারা যাওয়ার আগে বলে গেছেন মরদেহ আমার বাড়িতে এনে মাজার করতে। তাই আমি গুরুকে দাফন করে মাজার তৈরি করেছি।

তুলাসার ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জাহিদুল ইসলাম জাহিদ ফকির বলেন, আমি মাজারের বিষয়টি শুনেছি। তবে সমাজবিরোধী ওই মাজার ভেঙে ফেলাই ভালো।

এ বিষয়ে পালং মডেল থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মনিরুজ্জামান বলেন, আফজাল হোসেনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানায় আনা হয়েছে। বিষয়টি তদন্ত করা হচ্ছে।



মন্তব্য চালু নেই