মেইন ম্যেনু

শিরোপা জিতল এক টন ওজনের মিষ্টি কুমড়া

পর পর দুই বছর ইউরোপে সবচেয়ে বেশি ওজনের মিষ্টি কুমড়ার জন্য শিরোপা জিতেছেন বেলজিয়ামের কৃষক মাথিয়াস উইলেমিনস। তার ফলানো কুমড়াটির ওজন এক টনেরও বেশি।

বেলজিয়ামের কৃষক মাটিয়াস ভিলেমিনসের ‘কলোজাল’ মিষ্টি কুমড়াটির ওজন ১ হাজার ৮ কিলোগ্রাম। সম্প্রতি জার্মানির শহর লুডভিগসবুর্গ এ কুমড়া প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়, যেখানে শিরোপা জেতেন মাটিয়াস। ২৪ বছর বয়সী এই কৃষকের গতবারের কুমড়াটির ওজন অবশ্য এবারের চেয়ে বেশি ছিল। সেবার তার কুমড়ার ওজন ছিল ১ হাজার ১৯০ কেজি, যা বিশ্ব রেকর্ড গড়েছিল।

বিশাল এই কুমড়াটি একশ দিনেরও বেশি সময় ধরে রেখে দেয়া হয়েছিল, বাড়ার জন্য। গ্রীষ্মে ভীষণ গরমে এটাকে বাঁচিয়ে রাখতে প্রয়োজন হয়েছিল কয়েক হাজার লিটার পানি। দিনে এটির ওজন ৩০ কেজি পর্যন্ত বাড়তে পারে।

এ বছরের প্রতিযোগিতায় দ্বিতীয় হয়েছেন ইটালির স্তেফানো কুতুরুপি। তার কুমড়ার ওজন ছিল ৮৪৯ কেজি।

আর তৃতীয় স্থান অধিকার করেছে পোল্যান্ডের এক কৃষকের মিষ্টি কুমড়া। ডোমিনিক কেদসিয়াকের কুমড়াটির ওজন ছিল ৮৩৬ কেজি।
এর আগে জার্মানিতে অনুষ্ঠিত হয় বড় কুমড়ার প্রতিযোগিতা। সেই প্রতিযোগিতায় বিজয়ীরা ইউরোপের প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়েছিল।
জার্মানিতে সবচেয়ে বেশি ওজনের মিষ্টি কুমড়ার শিরোপা জিতেছিল বাভেরিয়ার একদল কৃষক। তাদের কুমড়াটির ওজন ছিল ৭৯২ দশমিক ৫ কিলোগ্রাম। দ্বিতীয় অবস্থানে ছিল হেসের একটি দল, তাদের কুমড়ার ওজন ছিল ৬৪৪ কেজি।

কিন্তু এবারের কোনো কুমড়াই গতবারের কুমড়ার ওজনের কাছাকাছি যেতে পারেনি। গতবার জার্মানিতে যে কুমড়াটি চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল, তার ওজন হয়েছিল ৯০১ কেজি। গত বছর সেই কুমড়ার জন্য পুরস্কার জিতেছিলেন পেটার বোনার্ট, যিনি এই কুমড়া ফলাতে দিনে ৬ ঘণ্টা মাঠে কাজ করতেন এবং গত কয়েক বছর ধরেই তিনি এই প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়ে আসছেন। তিনি সে সময় সাংবাদিকদের বলেছিলেন, ইন্টারনেটে এ ধরনের কুমড়ার বীজ বিক্রি হয় নিলামে। এক একটির বীজের দাম কয়েকশ’ ইউরো পর্যন্ত হয়ে থাকে। মে মাসে এই বীজ বোনা হয় এবং ধীরে ধীরে এটি থেকে চারা হয় এবং তা বাড়তে থাকে।

নভেম্বরের ৫ তারিখে এই কুমড়াগুলো ছোট ছোট আকারে টুকরো করা হবে। এছাড়া অক্টোবরের দ্বিতীয় সপ্তাহের শেষে যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন রাজ্যে শুরু হবে কুমড়া উৎসব। ডয়েচ ভেলে।






মন্তব্য চালু নেই