মেইন ম্যেনু

‘সিরিয়া মিশন সম্পন্ন’ : বুশের পথে কি ট্রাম্প?

সিরিয়ায় মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য এবং ফরাসি বিমান হামলা নিয়ে ব্যাপক সমালোচনার মুখে এক টুইটার বার্তায় মার্কিন প্রেসিডেন্ট বলেছেন, মিশন একমপ্লিশড, (সিরিয়া) মিশন সম্পন্ন। ইরাক যুদ্ধে সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট বুশের ভূমিকাকে মনে করিয়ে দেয়া ট্রাম্পের এ টুইটার বার্তা নিয়ে এর মধ্যেই সমালোচনার ঝড় ওঠেছে। বিবিসির সংবাদ।

সিরিয়ায় রাসায়নিক যুদ্ধাস্ত্র ধ্বংসের উদ্দেশে চালানো এ হামলা নিয়ে সংবাদমাধ্যমের সমালোচনা নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেন। টুইটার বার্তায় তিনি, এদেরকে ‘ভুয়া সংবাদমাধ্যম’ বলেও উল্লেখ করেন। এছাড়া এ যুদ্ধে মার্কিন বাহিনীর সাথে যুক্ত হওয়ায় ব্রিটিশ ও ফরাসী বাহিনীকে ধন্যবাদ প্রকাশও করেন তিনি।

একই ধরণের কারণ বা অজুহাত দেখিয়ে সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট জর্জ বুশের ইরাক হামলার ঘটনার সাথেও তুলনা করছেন অনেকে সিরিয়ায় এ হামলাকে। সেবারও ইরাক হামলার পরে বুশ উচ্চারণ করেছিলেন, মিশন একমপ্লিশড।

তাই অনেক সমালোচনাকারী শঙ্কা প্রকাশ করেছেন, বুশের মত সন্দেহ প্রকাশ করে ট্রাম্পও এ ভুল করলেন কিনা!

সমালোচনাকারীরা বলছেন, গণবিধ্বংসী অস্ত্র থাকার কারণ দেখিয়ে ইরাক যুদ্ধ শুরু করেছিলেন বুশ। যদিও পরবর্তীতে প্রমাণ হয় যে ইরাকে সে ধরণের কোন অস্ত্র ছিল না।

২০০৩ সালে শুরু হওয়া সে যুদ্ধে ইরাক প্রেসিডেন্ট সাদ্দাম হোসেইনকে উৎখাত করলেও সেখান থেকে মুক্তি পায়নি মার্কিন বাহিনী। শেষমেস ২০১১ সালে এসে সে যুদ্ধের ইতি টানতে পেরেছিল মার্কিন প্রশাসন। এ যুদ্ধের পেছনে বিপুল পরিমান মার্কিন বাজেট খরচ হওয়ায় বুশের এ সিদ্ধান্ত ব্যাপকভাবে সমালোচিত হন মার্কিন নাগরিকদের কাছে।

এ হামলা নিয়ে সমালোচনার মধ্যেই মার্কিন মুখপাত্র নিক্কি হ্যালি জানিয়েছেন, আসাদ সরকার রাসায়নিক হামলা বন্ধ না হলে সিরিয়ায় আরও হামলা চালানো হবে।

প্রসঙ্গত, সম্প্রতি সিরিয়ার বিদ্রোহী নিয়ন্ত্রিত ইস্টার্ন ঘৌতায় রাশিয়া সমর্থনে আসাদ বাহিনীর রাসায়নিক হামলা হয়েছে বলে দাবি করে যুক্তরাষ্ট্রসহ আন্তর্জাতিক মহল। যদিও রাশিয়া এ অভিযোগ অস্বীকার করে।



মন্তব্য চালু নেই