মেইন ম্যেনু

স্টিয়ারিং হাতে চোখে ঘুম চালকের, ৩১ যাত্রী নিয়ে বাস খাদে

নাটোরে বাস নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে সড়কের পাশে খাদে পড়ে একজন নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন নারী ও শিশুসহ আরও ৩০ যাত্রী।

মঙ্গলবার দুপুরে বনপাড়া-হাটিকুমরুল মহাসড়কে বড়াইগ্রাম উপজেলার রয়না পাম্পের সামনে এই দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহতের মুঞ্জুয়ারা বেগম (৫০) রাজশাহীর মোহনপুর থানার পুল্লাপাড়া এলাকার আলাউদ্দিনের স্ত্রী। আহতদের উদ্ধার করে বিভিন্ন হাসপাতাল ও ক্লিনিকে ভর্তি করা হয়েছে।

বনপাড়া হাইওয়ে থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) শামসুন নুর জানান, গাজীপুরের কোনবাড়ি থেকে সোহাগ পরিবহনের রাজশাহীগামী যাত্রীবাহী একটি বাস বড়াইগ্রামের রয়না পাম্পের সামনে পৌঁছালে হঠাৎ নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে সড়কের পাশের একটি গাছের সাথে ধাক্কা লেগে খাদে পড়ে যায়। এতে ঘটনাস্থলে মুঞ্জুয়ারা বেগম নামে এক যাত্রী নিহত হন। এ সময় নারী ও শিশুসহ আহত হয় আরও অন্তত ৩০ যাত্রী।

খবর পেয়ে নাটোর ও দয়রামপুর থেকে ফায়ার সার্ভিসের দুটি টিম এবং বড়াইগ্রাম ও গুরুদাসপুর উপজেলা হাসপাতালের দুইটি অ্যাম্বুলেন্স ঘটনাস্থলে গিয়ে হতাহতদের উদ্ধার করে। পরে আহতদের বড়াইগ্রাম হাসপাতাল, বনপাড়ায় বিভিন্ন ক্লিনিক ও রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। নিহতের মৃতদেহ বনপাড়া হাইওয়ে থানায় রাখা হয়েছে।

এছাড়াও বেশ কয়েকজন যাত্রীকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়েছে। তবে গাড়ির চালক বা হেলপারকে পাওয়া যায়নি। হতে পারে আহতদের মধ্যে চালক ও হেলপারও রয়েছেন।

বাসের যাত্রী আহত সাইফুল ইসলাম বলেন, বাসের চালক ঘুমঘুম চোখে গাড়িটি চালাচ্ছিলেন। এর আগেও কয়েকবার এলামেলো করে গাড়ি চালানোয় তাকে ভালোভাবে গাড়ি চালাতে বলা হয়েছে।

তিনি বলেন, চালক ওই সময় নিজের চোখে ঘুমের কথা স্বীকার করে বলেছেন- চোখে ঘুম আছে, একটু এদিক-সেদিক হতেও পারে। চিন্তা করার কিছু নেই। যাত্রীদের পৌঁছে দেয়া হবে।

এই যাত্রী বলেন, এরপর তিনি কাছিকাটা টোল প্লাজা পার হয়ে পুনরায় এলামেলোভাবে গাড়ি চালাতে শুরু করেন। এর কিছু সময় পরই এই দুর্ঘটনা ঘটে।



মন্তব্য চালু নেই