মেইন ম্যেনু

স্বামী-সন্তানের সামনেই লাশ রুমা!

স্বামী অসুস্থ। তার জন্যই চিকিৎসকের কাছে যাচ্ছিলেন মোছা. রুমা আক্তার (২২)। সঙ্গে দুই বছর বয়সী মেয়ে নুসরাত জাহান লামিয়া।

মুহূর্তেই স্বামী-সন্তানদের সামনে লাশ হয়ে গেলেন জীবন্ত রুমা। দ্রুতগতির বাস কেড়ে নিল তার প্রাণ।

ঘটনাটি ঘটেছে শনিবার বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে, রাজধানীর শ্যামলী শিশুমেলা কলেজ গেট এলাকায়। রাস্তা পারাপারের সময় গাবতলীগামী যাত্রীবাহী বাস ধাক্কা দিলে রুমা আক্তার গুরুতর আহত হন।

প্রথমে শহীদ সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালে নেয়া হয়। সেখানে অবস্থার অবনতি হলে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হয়। কর্তব্যরত চিকিৎসক রুমাকে মৃত ঘোষণা করেন।

নিহতের স্বামীর নাম মো. লিটন মিয়া। তিনি একটি সোয়েটার ফ্যাক্টরিতে কর্মরত। গ্রামের বাড়ি সুনামগঞ্জের ধর্মপাশা থানার বাডগাও গ্রামে।

স্ত্রী-সন্তান নিয়ে লিটন মিরপুর ১ এর ছাপাখানা মোড় মধ্য পাইকপাড়া এলাকায় ভাড়া বাসায় বসবাস করতেন।

ঢামেকে লিটন সাংবাদিকদের বলেন, ‘আমি অসুস্থ। স্ত্রী-সন্তান নিয়ে মোহাম্মদপুর হুমায়ুন রোডে এক চিকিৎসকের কাছে যাচ্ছিলাম। শিশুমেলার সামনে নেমে রাস্তা পারের সময় গাবতলীগামী একটি বাস রুমাকে ধাক্কা দিয়ে পালিয়ে যায়।’

কান্নাজড়িত কণ্ঠে তিনি বলেন, ‘আমার কোলে মেয়ে লামিয়া ছিল। ওর মা একটু পেছনে ছিল। শব্দ শুনে তাকিয়ে দেখি রুমা রক্তাক্ত অবস্থায় রাস্তায় পড়ে রয়েছে। আমার অবুঝ মেয়ে, মা মা করছে। ওকে সান্ত্বনা দিতে পারছি না। বুকটা ফেটে যাচ্ছে।’

ঢামেক পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই মো. বাচ্চু মিয়া জানান, লাশটি জরুরি বিভাগের মর্গে রাখা হয়েছে। ময়নাতদন্ত শেষে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হবে।



মন্তব্য চালু নেই