মেইন ম্যেনু

‘হিরোকে জিরো বানানো এত সহজ না’

‘হিরোকে জিরো বানানো এত সহজ নয়, এতে সহজে মাঠ ছাড়ছি না’-কথাগুলো আলোচিত অভিনেতা হিরো আলমের।

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে প্রার্থিতা বাতিলের আবেদনে হেরে গিয়ে তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় এসব কথা বলেন তিনি।

তিনি বগুড়া-৪ (কাহালু-নন্দীগ্রাম)আসন থেকে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করতে চেয়েছিলেন।

প্রার্থিতা বাতিলের বিরুদ্ধে হিরো আলমের আপিল নামঞ্জুর করেছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। ফলে নির্বাচনে দাঁড়ানো তার জন্য চ্যালেঞ্জের হয়ে উঠছে।

আজ নির্বাচন ভবনে ৪৩ নম্বর সিরিয়ালে হিরো আলমের প্রার্থিতা ফিরে পাওয়ার আবেদনের শুনানি হয়। এ সময় তিনি সেখানে উপস্থিত ছিলেন। নিজের প্রার্থিতা পক্ষে যুক্তি তুলে ধরেন।

শুনানি শেষে নির্বাচন কমিশন তার মনোনয়নপত্র অবৈধ ঘোষণা করেন।

এরপর এক তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় হিরো আলম ক্ষোভ প্রকাশ করেন।ইসির সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে হাইকোর্টে আপিল করবেন বলে জানান হিরো আলম।

তিনি বলেন, হিরোকে জিরো বানানো এত সহজ নয়, এত সহজে মাঠ ছেড়ে যাচ্ছি না। উচ্চ আদালতে আপিল করবো।আমি এখনই উচ্চ আদালতে যাচ্ছি।

রিটানিং কর্মকর্তার অভিযোগ ছিল, স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে ভোট করার জন্য সংসদীয় এলাকার মোট ভোটার ১ শতাংশের সমর্থনের স্বাক্ষর লাগে। কিন্তু হিরো আলমের মনোনয়নপত্রে সেটি ছিল না।

এ বিষয়ে হিরো আলমের ভাষ্য, নির্বাচনী এলাকায় মোট ভোটার সংখ্যা ৩ লাখ ১২ হাজার ৮৬ জন। সে অনুযায়ী ৩ হাজার ১শ ২১ জনের স্বাক্ষরই যথেষ্ট। কিন্তু ৩ হাজার ৫শ’ জনের স্বাক্ষর দিয়েছি। তারপরও আমারটা বাতিল করা হয়েছে।

আমি ইসিতে আপিল করেছিলাম। এই আশায় যে, প্রার্থিতা ফিরে পাব। কিন্তু তা আর হলো না।

তবে আমি উচ্চ আদালতে যাচ্ছি। দেখি কি হয়। আশা করছি, সেখানে আমি আমার প্রার্থিতা ফিরে পাব।

হিরো আলম বলেন, আমার মনোনয়নপত্র ষড়যন্ত্র করে বাতিল করে দেয়া হয়েছে। আমি মনে করি, আমার মনোনয়নপত্রে কোনো ভুল ছিল না। নির্বাচন কমিশন যে ভুল ধরেছে, তা নিয়ে আমি চ্যালেঞ্জ করতে পারি।

উচ্চ আদালতেও হেরে গেলে কি করবেন- এ প্রশ্নে তিনি বলেন, যদি শেষ পর্যন্ত বাতিল হয় তাহলে আমি বসে থাকবো না। আমার ব্যক্তি ইমেজ কাজে লাগিয়ে যেকোনো একটি পক্ষে কাজ করবো।

ইউটিউবে বিচিত্র অভিনয়, গান আর নাচ দেখিয়ে দেশব্যাপী আলোচনায় আসেন হিরো আলম। তার প্রকৃত নাম আশরাফুল আলম।



মন্তব্য চালু নেই