মেইন ম্যেনু

১০ বছরে বিএনপির বিরুদ্ধে ৯০ হাজার মামলা, ২৬ লাখ আসামি

বর্তমান সরকার ক্ষমতায় আসার পর ২০০৯ থেকে ২০১৮ সাল পর্যন্ত বিএনপি নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে ৯০ হাজার ৩৪০টি মামলা হয়েছে বলে দাবি করেছে দলটি। তাদের দাবি অনুযায়ী মামলায় আসামি করা হয়েছে ২৫ লাখ ৭০ হাজার ৫৪৭ জনকে এবং জেলহাজতে রয়েছে ৭৫ হাজার ৯২৫ জন নেতাকর্মী।

রোববার সকালে রাজধানীর আগারগাঁওয়ে নির্বাচন কমিশনে প্রধান নির্বাচন কমিশনারের (সিইসি) কাছে এই তালিকা জমা দেয় বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের মামলা ও তথ্য সংরক্ষণ কর্মকর্তা মো. সালাহ উদ্দিন খানের নেতৃত্বে দুই সদস্যের প্রতিনিধি দল।

তাদের তালিকা অনুযায়ী তফসিল ঘোষণার পর গ্রেফতার করা হয়েছে ৭৭৩ জনকে। এর আগেই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও ইসির কাছে এদের তালিকা দেয়া হয়েছিল। আর ১৬ নভেম্বর সিইসির কাছে ৪৭২ জন নেতাকর্মীকে গ্রেফতারের তালিকা জমা দেয় বিএনপি।

রোববার চিঠিতে আরও দাবি করা হয়, এই ১০ বছরে হত্যা করা হয়েছে ১ হাজার ৫১২ জন বিএনপি নেতাকর্মীকে।

বিএনপির সহ-দফতর সম্পাদক তাইফুল ইসলাম টিপু স্বাক্ষরিত এই তালিকা জমা দেয় বিএনপি।

তালিকা অনুযায়ী, ২০০৯ সাল থেকে চলতি বছরের ৩০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত গুম হয়েছেন ১ হাজার ২০৪ জন। ১০ বছরে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর হাতে আহত হয়েছে ১০ হাজার ১২৬ জন বিএনপি নেতাকর্মী।

বিএনপি আরও বলছে, চলতি বছরের ১ সেপ্টেম্বর থেকে ১৪ নভেম্বর পর্যন্ত ৭৫ দিনে বিএনপি নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে ৪ হাজার ৪২৯টি। নাম উল্লেখ করে আসামি করা হয়েছে ১ লাখ ৯ হাজার ৪৪১ জনকে, অজ্ঞাত আসামি হিসেবে আদালতে চালান করা হয়েছে ৩ লাখ ২৫ হাজার ৫৩৪ জনকে। জ্ঞাত ও অজ্ঞাত আসামির সংখ্যা ৪ লাখ ৩৪ লাখ ৯৭৫ জন। এ ছাড়া গ্রেফতার করা হয়েছে ১০ হাজার ৪৭২ জনকে। এই ৭৫ দিনে বিএনপির ৫১৭ জনকে রিমান্ডে নেয়া হয়েছে।

নির্বাচন কমিশনের নির্দেশ উপেক্ষা করে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী তফসিলের পর বিএনপি নেতাকর্মীদের গ্রেফতার অব্যাহত রেখেছে বলেও অভিযোগ করে দলটি।

মৃত, অসুস্থ, হজ পালনরত, বিদেশে অবস্থান করা ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে উল্লেখ করে চিঠিতে বলা হয়, ১ নভেম্বর প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সংলাপে মিথ্যা ও গায়েবি মামলা এবং গ্রেফতারের তালিকা দেয়ার জন্য জানান সরকারপ্রধান। সেই আলোকে বিএনপির পক্ষ থেকে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় এবং আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বরাবর ৭ নভেম্বর প্রথম দফায় ১ হাজার ৪৬টি মামলার তালিকা দেয় বিএনপি। দলটি পরবর্তীতে ১৩ নভেম্বর দ্বিতীয় দফায় ১ হাজার ২টি মামলার নম্বর, ধারাসহ প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে জমা দেয়।

বিএনপি চিঠিতে বলছে, ‘প্রধানমন্ত্রীর দেয়া প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী, মামলাগুলো প্রত্যাহার এবং গ্রেফতার হওয়া নেতাকর্মীদের অব্যাহতি না দেয়া নিঃসন্দেহে উদ্বেগজনক। গত ৮ নভেম্বর নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পর থেকে আজ পর্যন্ত প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী ৭৭৩ জন বিএনপি নেতাকর্মীকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এর তালিকা গত ১৫ নভেম্বর নির্বাচন কমিশন বরাবর দেয়া হয়েছে। তফসিল ঘোষণার পর আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী নির্বাচন কমিশনের অধীনে হলেও কমিশনের নির্দেশ উপেক্ষা করে ধারাবাহিকভাবে বিএনপি নেতাকর্মীদের গ্রেফতার ও বাড়িতে পুলিশি তল্লাশি অব্যাহত রয়েছে। এ কারণে প্রধানমন্ত্রীর দফতারে দেয়া তালিকা আপনার (প্রধান নির্বাচন কমিশনার) বরাবর দেয়া হলো।’

তফসিল ঘোষণার পরও নির্বাচন কমিশনের নির্দেশ উপেক্ষা করে উল্লিখিত গায়েবি মামলার আসামিদের বাড়িতে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর হুমকি ও গ্রেফতার অব্যাহত আছে। অবিলম্বে নেতাকর্মীদের মামলা থেকে অব্যাহতিসহ গ্রেফতার বন্ধের জন্য আপনার (সিইসি) কাছে আবারও অনুরোধ করা হলো।



মন্তব্য চালু নেই