মেইন ম্যেনু

১৪ পুলিশ, ৪ নারীকে ছেড়ে দিল আরাকান আর্মি

মিয়ানমারের বৌদ্ধ বিদ্রোহীদের গোষ্ঠী আরাকান আর্মি (এএ) বন্দী ১৪ জন পুলিশ অফিসার ও চারজন বেসামরিক নারীকে মুক্তি দিয়েছে বলে শনিবার জানিয়েছে থাইল্যান্ডভিত্তিক সংবাদমাধ্যম দ্য ইরাওয়ার্দি।

আগের দিন মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যের চারটি বর্ডার পোস্টে সমন্বিত হামলা চালানোর সময় এদের বন্দী করে সশস্ত্র দলটি।

ইরাওয়ার্দির খবরে বলা হয়, আরাকান আর্মি জানিয়েছে, যুদ্ধবন্দীদের বিষয়ে প্রচলিত আন্তর্জাতিক নিয়ম মেনে তারা বন্দীদের মুক্তি দিয়েছে।

মিয়ানমারের তথ্য মন্ত্রণালয় শুক্রবার জানিয়েছিল, ৩০০ বিদ্রোহী হামলা চালিয়ে ১৪ জন পুলিশকে হত্যা এবং নয় জনকে আহত করেছে। শুক্রবার ভোরের এই হামলায় তারা ৪০ টি আগ্নেয়াস্ত্র ও ৪০ হাজার রাউন্ড গুলিও নিয়ে যায়।

শুক্রবার সেনাবাহিনী প্রাথমিকভাবে জানিয়েছিল নয়জন সেনা সদস্য নিহত হয়েছে।

মন্ত্রণালয়ের তথ্য অনুযায়ী, অতিরিক্ত পুলিশ ও সেনাবাহিনীর সৈন্য পাঠানোর পরও এসব পোস্টে এএ’র ব্যাপক হামলা ঠেকানো সম্ভব না হওয়ায় তারা অন্য দুটি পোস্টে গিয়ে আশ্রয় নেয়। চারটি গ্রামের সব বাসিন্দারা পালিয়ে গিয়ে নিরাপদ জায়গায় আশ্রয় নেন।

এএ তাদের তথ্যের পেইজে বন্দীদের মুক্তি দেয়ার খবর জানায় শুক্রবার। তারা মিয়ানমার সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে অতিরিক্ত শক্তি প্রয়োগের অভিযোগ এনেছে।

সশস্ত্র গোষ্ঠীটি জানায়, ‘রাখাইনে প্রায় প্রতিদিনই সংঘর্ষ হয় এবং সেখানে অভ্যন্তরীণ বাস্তুহারাদের সংখ্যা বাড়ছে’।

সেনাবাহিনী তাদের খাবার, তহবিল, তথ্য ও নিয়োগের ব্যবস্থা বন্ধ করে দেয়ায় তারা একই সঙ্গে চারটি পোস্টে হামলা চালিয়েছে বলে দাবী করে। রাখাইনের তরুণদেরও কোনও কারণ ছাড়া যথেচ্ছ গ্রেফতার করা হচ্ছে বলে দাবী করে তারা।



মন্তব্য চালু নেই