মেইন ম্যেনু

৫৩ শতাংশ আমেরিকান ট্রাম্পের পদত্যাগের পক্ষে

অধিকাংশ আমেরিকান মনে করেন, ট্রাম্পের বিরুদ্ধে যেসব যৌন হয়রানির অভিযোগ উঠেছে তার দায় মাথায় নিয়ে তার পদত্যাগ করা উচিত। নতুন এক জরিপে এমন তথ্য উঠে এসেছে। পাবলিক পলিসি পোলিং পরিচালিত জরিপের ফল প্রকাশ করা হয়েছে বৃহস্পতিবার। এই জরিপ অনুযায়ী ৫৩ শতাংশ আমেরিকান মনে করেন, প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের বিরুদ্ধে যেসব যৌন হয়রানির অভিযোগ উঠেছে তার দায় মাথায় নিয়ে তার পদত্যাগ করা উচিত।

প্রসঙ্গত, ইতোমধ্যে এক ডজনেরও বেশি নারী অভিযোগ করেছেন যে, প্রেসিডেন্ট হওয়ার আগে ট্রাম্প তাদের যৌন হয়রানি করেছেন।

তবে জরিপের ফলাফল অনুযায়ী ৪২ শতাংশ আমেরিকান ট্রাম্পের ক্ষমতায় থাকার পক্ষে।

এদিকে, জরিপে অংশগ্রহণকারীদের ৫৩ শতাংশ মনে করেন, ট্রাম্পের বিরুদ্ধে যেসব অভিযোগ করা হয়েছে তা সত্য। আর ৩১ শতাংশ মনে করেন, এসব অভিযোগ সত্য নয়, বরং সাজানো।

প্রসঙ্গত, একই অভিযোগে গত সপ্তাহে সিনেটর আল ফ্রাঙ্কেনসহ কয়েক জন কংগ্রেস সদস্য পদত্যাগ করেছেন। তার পরই এ ধরনের জরিপ পরিচালনা করা হলো।

পাবলিক পলিসি পোলিংয়ের প্রেসিডেন্ট ডিন ডেবনাম এক বিবৃতিতে বলেছেন, ‘রাজনীতিবিদদের বিরুদ্ধে যে যৌন হয়রানির অভিযোগ আনা হয়েছে তাদের পদত্যাগের ধারাবাহিকতা দেখতে চান ভোটাররা। তারা আল ফ্রাঙ্কেনের পদত্যাগের বিষয়টিকে সমর্থন করে বলেন, এবার ট্রাম্পের পদত্যাগ করা উচিত।’

অপরদিকে, রাসমুসেন পরিচালিত অপর এক জরিপে বলা হয়েছে, ৫৮ ভাগ আমেরিকান মনে করেন, যৌন হয়রানির যে অভিযোগ আনা হয়েছে তা সত্য। তারা আরও মনে করেন, যদি অভিযোগ প্রমাণ হয় তাহলে ট্রাম্পের পদত্যাগ করা উচিত। বৃহস্পতিবার ওই জরিপের ফলাফল প্রকাশ করা হয়।

প্রসঙ্গত, সোমবার তিন নারী অভিযোগ করেন যে, ট্রাম্প তাদের যৌন হয়রানি করেছেন। বিষয়টি তদন্ত করতে তারা কংগ্রেসের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।

এর আগে চলতি সপ্তাহের শুরুতে কংগ্রেসের কিছু ডেমোক্রেটিক দলীয় ও নারী সদস্য ট্রাম্পের বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ তদন্তের আহ্বান জানান।

এক ডজনের বেশি নারী অভিযোগ করে বলেছেন, ট্রাম্প তাদের সঙ্গে জোরপূর্বক যৌন হয়রানি, যেমন জোরপূর্বক চুমু খাওয়া ও জড়িয়ে ধরা, করেছেন।

অন্যদিকে, মনমাউথ বিশ্ববিদ্যালয় পরিচালিত এক গবেষণার ফলাফল বুধবার প্রকাশ করা হয়েছে। এতে বলা হয়েছে, ট্রাম্পের সমর্থনের রেকর্ড সর্বনিম্ন পর্যায়ে চলে এসেছে।

ফলাফলে দেখা যায়, মাত্র ৩২ শতাংশ মানুষ তার প্রতি সমর্থন জানিয়েছেন। আর ৫৬ শতাংশ লোক মনে করছেন, ট্রাম্প তার দায়িত্ব সঠিকভাবে পালন করছেন না।






মন্তব্য চালু নেই