মেইন ম্যেনু

৬৯ শতাংশ পাকিস্তানি জানেন না ইন্টারনেট কী

১৫ থেকে ৬৫ বছর বয়সী প্রায় ৬৯ শতাংশ পাকিস্তানি জানেন না ইন্টারনেট কী। শ্রীলঙ্কাভিত্তিক তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তিবিষয়ক থিঙ্কট্যাঙ্ক প্রতিষ্ঠান লার্নে এশিয়ার এক জরিপে এ তথ্য উঠে এসেছে।

সোমবার পাকিস্তানের ইংরেজি দৈনিক ডন এক প্রতিবেদনে বলছে, পাকিস্তানের দুই হাজার পরিবারের ওপর এই জরিপ পরিচালনা করেছে লার্নে এশিয়া। শ্রীলঙ্কার এই প্রতিষ্ঠানের দাবি, জাতীয় পর্যায়ে ১৫ থেকে ৬৫ বছর বয়সী ৯৮ শতাংশ জনসংখ্যার প্রতিনিধিত্ব নিশ্চিত করার জন্য জরিপের নমুনা হিসেবে ওই দুই হাজার পরিবারকে বাছাই করা হয়েছিল।

২০১৭ সালের অক্টোবর থেকে ডিসেম্বরে এই জরিপ পরিচালনা করা হলেও সোমবার তা প্রকাশ করা হয়। পাকিস্তানের ব্যবহারকারীরা তথ্যপ্রযুক্তি সেবা ব্যবহার করছেন, নাকি করছেন না সেটি তুলে আনাই ছিল এই জরিপের উদ্দেশ্য।

লার্নে এশিয়ার প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা হেলানি গলপায়া বলেছেন, পাকিস্তান টেলিকমিউনিকেশন কর্তৃপক্ষের ওয়েবসাইটে বলা হয়েছে, দেশটিতে সক্রিয় মোবাইল সিমের গ্রাহক রয়েছে ১৫ কোটি ২০ লাখ। সিম নিবন্ধনের ভালো ব্যবস্থা থাকা সত্ত্বেও এই গ্রাহকদের মধ্যে নারী-পুরুষের সংখ্যা কিংবা ধনী-দরিদ্রের হার সম্পর্কে কোনো তথ্য এই ওয়েবসাইটে নেই। যার ফলে ইন্টারনেট ব্যবহারের সুযোগ ও ব্যবহারকারীর সংখ্যার মধ্যে যে ব্যবধান তা বুঝতে কোনো সহায়তা পাওয়া যায় না।

জরিপের ফলাফলে বলা হয়েছে, ইন্টারনেট সম্পর্কে জানা শোনার অভাবকে পাকিস্তান-সহ এশিয়ার অন্যান্য দেশেও সমস্যা হিসেবে বিবেচনা করা হয়। পাকিস্তানের ১৫ থেকে ৬৫ বছর বয়সীদের মধ্যে ইন্টারনেট সম্পর্কে ধারণা আছে মাত্র ৩০ শতাংশ মানুষের। ইন্টারনেট কী, এই প্রশ্ন ছাড়াই ইন্টারনেট ব্যবহার করেন কি-না সরাসরি এমন প্রশ্ন রাখা হয়েছিল জরিপে তাদের কাছে।

তবে জরিপে অংশ নেয়া ১৭ শতাংশ মানুষের দাবি, তারা ইন্টারনেট ব্যবহার করেন। তবে যারা ব্যবহার করেন না তারা প্রধান কারণ হিসেবে বলেছেন, ইন্টারনেটের ব্যাপারে তাদের জানা শোনা নেই।

গ্রামীণ এবং শহুরে এলাকায় ইন্টারনেট ব্যবহারের ব্যবধান মাত্র ১৩ শতাংশ। এমনকি পাকিস্তানের এই চিত্র এশিয়ার অন্যান্য দেশগুলোর মধ্যে সর্বনিম্ন। পুরুষদের তুলনায় ইন্টারনেট ব্যবহারে পাকিস্তানি নারীরা পিছিয়ে আছেন ৪৩ শতাংশ, যদিও এই হার ভারত এবং বাংলাদেশের চেয়ে ভালো। ভারতে নারী পুরুষের ইন্টারনেট ব্যবহারের ব্যবধান ৫৭ শতাংশ এবং বাংলাদেশে ৬২ শতাংশ।

লার্নে এশিয়ার এই প্রতিবেদনে বলছে, পাকিস্তানে স্মার্ট মোবাইল ফোনের মাধ্যমে ইন্টারনেট ব্যবহার করে মাত্র ২২ শতাংশ মানুষ। এছাড়া ২৫ শতাংশ মানুষ ইন্টারনেট ব্যবহার করে ফিচার ফোনে। হেলানি গলপায়া বলেছেন, ৫৩ শতাংশ মোবাইল ফোন ব্যবহারকারীর ফোনে ইন্টারনেট ব্যবহারের সুযোগ নেই। মৌলিক ফোন ছুড়ে ফেলে মানুষের হাতে স্মার্ট ফোন তুলে দেয়ার এটাই উপযুক্ত সময়।

তবে দেশে সর্বোচ্চ সংখ্যক মানুষ মোবাইল ফোন ও ইন্টারনেট ব্যবহার করেন বলে দাবি করলেও পাকিস্তান টেলিকমিউনিকেশন কর্তৃপক্ষ শ্রীলঙ্কার এই প্রতিষ্ঠানের জরিপের ব্যাপারে কোনো প্রতিক্রিয়া জানায়নি।



মন্তব্য চালু নেই