মেইন ম্যেনু

আমিরাতকে হেসেখেলেই হারালো বাংলাদেশ

ভাগ্য পরীক্ষায় জিতে বোলিংয়ে আগুন ঝরায় জুনিয়র সাকিব-রাকিবুলরা। যাতে মাত্র ১২৭ রানেই গুড়িয়ে যায় সংযুক্ত আরব আমিরাত। জবাবে ১৪১ বল বাকি থাকতেই হেসে খেলে ছয় উইকেটের জয় পায় টাইগার যুবারা।

শুক্রবার শ্রীলঙ্কার কাটুনায়েকের মাঠে অনূর্ধ্ব-১৯ এশিয়া কাপের বি-গ্রুপে নিজেদের প্রথম ম্যাচে মুখোমুখি হয় দু’দল। বৃষ্টি বিঘ্নিত এ ম্যাচটির ব্যাপ্তি এমনিতেই কমে যায় পাঁচ ওভার। তারমধ্যে ব্যাট করতে নেমেই টাইগার যুবাদের তোপের মুখে পড়ে ৬ রানেই ২ উইকেট হারায় আমিরাতের যুবারা।

যার শুরুটা আসে পেসার শরিফুলের বাঁ হাত থেকে। পরে তার দলে একে একে শামিল হন তানজিম হাসান সাকিব, রাকিবুল ও মৃত্যুঞ্জয়। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি ভয়ঙ্কর ছিলেন বাঁহাতি অর্থোডক্স বোলার রাকিবুল হাসান। সাত ওভার হাত ঘুরিয়ে মাত্র ২৫ রানের বিনিময়ে তুলে নেন তিনটি উইকেট।

রাকিবুলের সঙ্গে পাল্ল দিয়ে জুনিয়র সাকিবও দখল করেন তিন উইকেট। যদিও রান দেন রাকিবুলের থেকে একটু বেশি, ৩৬। এছাড়া শরিফুল ২টি ও মৃত্যুঞ্জয় ১টি উইকেট লাভ করেন।

যার ফলে এক ওসামা হাসান ছাড়া টাইগার বোলারদের সামনে দাঁড়াতে পারেননি প্রতিপক্ষের কেউই। ইনিংস সর্বোচ্চ ৫৮ রান আসে তার ব্যাট থেকে। এছাড়া দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৩৪ রান করেন আলিশান শারাফু। বাকিদের কেউই ছুঁতে পারেনি দুই অঙ্ক।

জবাবে ১২৮ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে দারুণ সূচনা করেন তানজিদ হাসান ও পারভেজ হোসাইন ইমন। ৬২ রানের দারুণ এক জুটি গড়ে বিচ্ছিন্ন হন তারা। এরপর ৯৫ রানে দ্বিতীয় এবং ১১৮ রানে তাওহিদ হৃদয় ও শাহাদাৎ হোসাইন আউট হলেও তা জয়ের পথে বাঁধা হয়ে উঠতে পারেনি। অপরাজিত ২৭ রানের ইনিংস খেলে দলের জয় নিশ্চিত করেন মাহমুদুল হাসান জয়। চারটি বাউন্ডারির সাহায্যে ৪০ বল খেলে ওই রান করেন তিনি।

দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ৪৫ রান আসে ওপেনার তানজিদ হাসানের ব্যাট থেকে। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৩০ রান করেন আরেক ওপেনার পারভেজ হোসাইন। আর তাওহিদের ব্যাট থেকে আসে ১৮ রান। জয়ের মুহূর্তে জয়ের সঙ্গে অপরাজিত ছিলেন যুবা ক্যাপ্টেন কাম উইকেটরক্ষক আকবর আলি।

আমিরাতের হয়ে ভারতীয় বংশোদ্ভূত রিশভ মুখার্জি চেষ্টা করেছিলেন কিছুটা ভয়ঙ্কর হয়ে উঠতে। মাত্র সাড়ে তিন ওভার হাত ঘুরিয়ে পর পর দুটি উইকেট তুলে নেন তিনি। বিনিময়ে অবশ্য ২৭ রান দিতে হয়েছে এ অফ স্পিনারকে।

এদিকে এ জয়ের ফলে পূর্ণ দুই পয়েন্ট নিয়ে বি-গ্রুপের পয়েন্ট তালিকায় শীর্ষে অবস্থান নিয়েছে যুবারা। আটটি দল দুটি গ্রুপে ভাগ হয়ে রবিন রাউণ্ড ফরম্যাটে খেলবে। বাংলাদেশের পরবর্তী ম্যাচ আগামী রোববার, নেপালের বিপক্ষে।



মন্তব্য চালু নেই