শিরোনাম:

আরও উচ্চতা বাড়লো মাউন্ট এভারেস্টের, চীন-নেপাল একমত

পৃথিবীর সর্বোচ্চ পর্বতশৃঙ্গ মাউন্ট এভারেস্টের উচ্চতা আরও বাড়লো। বদলাতে হবে ভূগোলের পাঠ্যবইয়ে এভারেস্ট সংক্রান্ত বহু তথ্য।

বিশ্বের উচ্চতম শৃঙ্গের উচ্চতা কত তা নিয়ে বেশ কয়েক বছর ধরেই মতবিরোধ চলছিল নেপাল ও চীনের।

সম্প্রতি মাউন্ট এভারেস্টের উচ্চতা বেড়ে গেছে।

বর্তমানে এভারেস্টের উচ্চতা ৮৮৪৮.৮৬ মিটার। তার মানে ০.৮৬ মিটার বেড়ে গেছে এভারেস্টের।

মঙ্গলবার (৮ ডিসেম্বর) দুই দেশের দুই পররাষ্ট্রমন্ত্রী পর্বতশৃঙ্গটির উচ্চতা ৮ হাজার ৮৪৮ দশমিক ৮৬ মিটার বলে একমত হন।

এদিন নেপালের বিদেশ মন্ত্রালয় এক বিবৃতিতে জানায়, বিশ্বের উচ্চতম শৃঙ্গের উচ্চতা বেড়ে গেছে।

১৯৫৪ সালে সার্ভে অফ ইন্ডিয়ার সমীক্ষায় উঠে এসেছিল এভারেস্টের সাম্প্রতিকালের উচ্চতা। সেসময় জানা যায় এভারেস্টের উচ্চতা ৮,৮৪৮মিটার।
২০১৫ সালে ভয়াবহ ভূমিকম্পের পর নেপাল সরকার পক্ষ থেকে জানানো হয়, এর জেরে এভারেস্টের উচ্চতা বেড়ে গেছে। এরপর থেকে নেপাল চীনের সঙ্গে চুক্তি করে শৃঙ্গের উচ্চতা মাপার জন্য একটি দল পাঠায়।

২০১৯ সালে কাঠমাণ্ডু ও বেজিংয়ের যৌথ প্রচেষ্টার কথা ঘোষণা করেন দুই দেশের প্রধানমন্ত্রী।

প্রসঙ্গত, চীনের রাষ্ট্রপতি শি জেনপিং নেপাল সফরের সময়ই ওই চুক্তিকে সাক্ষর করেন। এর আগে ১৯৭৫ ও ২০০৫ সালে এভারেস্টের উচ্চতা প্রকাশ করেছিল চীন। সেই দু-বার চিনের হিসেবে এভারেস্টের উচ্চতা ছিল ৮৮৪৮.১৩ মিটার এবং ৮৮৪৪.৪৩ মিটার।

বিশেষজ্ঞদের মতে, ২০১৫ সালে ভয়ংকর কম্পনের পরই সমগ্র হিমালয় পর্বতমালায় বিপুল পরিবর্তন আসে।

সেই সময় বিশেষজ্ঞরা দাবি করেছিলেন যে, ওই ভূমিকম্পের জেরে বদল আসতে পারে হিমালয়ের পর্বতশৃঙ্গগুলির উচ্চতা।
১৮৪৯ সালে এভারেস্টের উচ্চতা মাপার প্রথম কাজ শুরু হয়। তারপর ৬ বছর ধরে সেই কাজ চলার পর এভারেস্টের উচ্চতা ২৭ হাজার ২ ফুট হিসেবে স্বীকৃতি দেওয়া হয়। সেই উচ্চতা মাপার নেতৃত্বে ছিলেন বাঙালি গণিতজ্ঞ রাধানাথ শিকদার।



মন্তব্য চালু নেই