মেইন ম্যেনু

আশ্রয় শিবির থেকে পালাচ্ছে রোহিঙ্গারা

প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়া বিলম্বিত হওয়ায় আশ্রয় শিবির থেকে পালাচ্ছে রোহিঙ্গারা। দিনে কিংবা রাতে সব সময় অবাধে পালাচ্ছে। গত ২০ মাসে শিবির থেকে পালানোর সময় দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে আটক করে ৫৮ হাজার ৫৮৩ রোহিঙ্গাকে ক্যাম্পে ফেরত পাঠিয়েছে পুলিশ। ক্যাম্পের চারদিকে বিশাল সীমানা প্রাচীর না থাকায় রোহিঙ্গাদের পালানো ঠেকাতে পারছেনা আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। আর বিশাল এলাকা হওয়ায় রোহিঙ্গাদের নিয়ন্ত্রণ করা কঠিন হয়ে পড়েছে, বলছে পুলিশ।

বিভিন্ন উপায়ে রোহিঙ্গা ক্যাম্প থেকে পালিয়ে কক্সবাজার আসার পর পুলিশের হাতে আটক হয় ৩৪ রোহিঙ্গা পুরুষ-নারী ও শিশু। উন্নত জীবনের হাতছানিতে দিনে কিংবা রাতে অবাধে ক্যাম্প ছেড়ে পালাচ্ছে রোহিঙ্গারা।

রোহিঙ্গাদের পালানো ঠেকাতে কক্সবাজারের বিভিন্ন সড়কে ১১টির বেশি তল্লাশি চৌকি বসিয়েছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। তারপরও আশ্রয় শিবির ছেড়ে রোহিঙ্গাদের পালানোর ঘটনায় উদ্বিগ্ন স্থানীয়রা।

প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়া বিলম্বিত হওয়ায় আশ্রয় শিবির ছেড়ে পালাচ্ছে রোহিঙ্গারা। এতে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতির আশঙ্কা স্থানীয়দের।

কক্সবাজার বাঁচাও আন্দোলনের সাধারণ সম্পাদক আয়াছুর রহমান বলেন, মায়ানমার সরকার রোহিঙ্গাদের ফেরত নিতে গড়িমসি করায় তারা ক্যাম্প ছেড়ে পালাচ্ছে। ফলে কক্সবাজার সহ দেশের নানান জায়গায় আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতির আশঙ্কা আছে।

কক্সবাজার জেলা পুলিশ সুপার এ বি এম মাসুদ হোসেন বলেন, বিশাল এলাকা জুড়ে তাদের অবস্থান হওয়ায় রোহিঙ্গাদের নিয়ন্ত্রণ করা ক্রমশ কঠিন হয়ে পড়ছে।

১১ লাখ ১৮ হাজার ৯৫১ জন রোহিঙ্গার ৩৪টি আশ্রয় শিবিরের কোনটিকে ঘিরে কাঁটাতারের বেড়া নেই। শিবিরের আয়তন প্রায় দশ হাজার একর। শিবিরের আয়তন প্রায় দশ হাজার একর। অরক্ষিত শিবিরগুলোর চারদিকে এক হাজারের বেশি জঙ্গলঘেরা দুর্গম পথ রয়েছে।



মন্তব্য চালু নেই