ঈদকে সামনে রেখে ব্যস্ত সময় পার করছে দর্জি শিল্পীর কারিগররা

আসন্ন ঈদুল ফিতরকে সামনে রেখে সাতক্ষীরার কালিগঞ্জ উপজেলার দর্জিপট্টিগুলো কর্মমুখর হয়ে উঠেছে। নতুন পোষাক তৈরিতে দিন-রাত সমান করে ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন কারিগররা।

দর্জিপট্টি ও টেইলার্সগুলো ঘুরে দেখা গেছে, দোকানগুলোর মেঝেতে কাপড়ের স্তুপ। ডান-বায়ের দেয়ালেও ঝুলছে নানা রঙ ও নকশার বানানো পোশাক। সেলাই মেশিনের খটখট আওয়াজে মুখরিত দর্জিপট্টি। এর মধ্যেই নেওয়া হচ্ছে নতুন পোশাকের অর্ডার। একই সঙ্গে চলছে মাপ অনুয়ায়ী কাপড় কাটার কাজও।

কয়েকজন দর্জি জানান, কাজের চাপে পোষাক তৈরির অর্ডার নেওয়া বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। কারিগররা আর কত পোষাক তৈরি করবে? চাপ একুট বেশি। কারণ লকডাউনে সব বন্ধ ছিল।

কালিগঞ্জ সদরের সুইচগেট মোড়ের দর্জিপট্টির এশিয়া টেইলার্সের মালিক জাকির হোসেন মিস্টার জানান, আমরা যত্ন সহকারে আধুনিক ডিজাইনের রুচিসম্মত পোশাক তৈরি করি। মানুষের আস্থাই আমাদের চলার পাথেয়।

এদিকে, মহিলাদের পোষাক তৈরিতে সবচেয়ে বেশি ভীড় দেখা যায় টেইলার্সে। এছাড়াও বিভিন্ন টেইলার্স গুলোতে ক্রেতাদের ভীড় দেখা যায়।

এবারের ঈদে প্রতিটি প্যান্টের জন্য ৩৫০ টাকা, শার্টের জন্য ২৫০ টাকা, পাঞ্জাবির জন্য ৩০০ থেকে ৪০০ টাকা পর্যন্ত মজুরি নেওয়া হচ্ছে বলে জানান স্থানীয় দর্জিরা।



মন্তব্য চালু নেই