মেইন ম্যেনু

এফডিসিতে মৌসুমী লাঞ্ছিত

সামনে চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির নির্বাচন। এ নির্বাচনকে ঘিরে এখন উৎসবের আমেজ পুরো এফডিসি জুড়ে। প্রার্থীরা প্রতিদিনই প্রচার চালাচ্ছেন, ভোটারদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করছেন। এবারের নির্বাচনে সভাপতি প্রার্থী হয়েছেন যথাক্রমে মিশা সওদাগর ও নায়িকা মৌসুমী।

সোমবার মৌসুমী এফডিসিতে আসলে খল অভিনেতা ড্যানিরাজের হাতে লাঞ্ছিত হন তিনি। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে বিএফডিসিতে উত্তেজনা তৈরি হয়। সমর্থকদের মধ্যে উত্তেজনা দেখা দেয়।

এ সময় প্রধান নির্বাচন কমিশনার ইলিয়াস কাঞ্চন তাৎক্ষণিকভাবে প্রযোজক সমিতির সভাপতি খোরশেদ আলম খসরু, শিল্পী সমিতির সভাপতি মিশা সওদাগর ও সাধারণ সম্পাদক জায়েদ খানকে নিয়ে আলোচনায় বসেন। সেখানে ড্যানিরাজ কৃতকর্মের জন্য ক্ষমা চেয়েছেন বলে জানা যায়।

জানা যায়, সন্ধ্যায় মৌসুমীকে শুভেচ্ছা জানাতে শিল্পী সমিতিতে আসেন মহিলা লীগের কয়েকজন নেতা-কর্মী। এসময় শিল্পী সমিতিতে প্রবেশ নিয়ে ড্যানিরাজের সঙ্গে হট্টগোল বেঁধে যায়। একপর্যায়ে তিনি মৌসুমীকে ধাক্কা দেন বলে অভিযোগ ওঠে। বিষয়টি নিয়ে উত্তেজনার সৃষ্টি হয়।

এসময় ঘটনা স্থলে মিশা সওদাগর, চিত্রনায়ক জয়সহ অনেকে উপস্থিত ছিলেন।

আগামী ২৫ নভেম্বর শিল্পী সমিতির নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। এবারের নির্বাচনে সভাপতি পদে লড়ছেন চিত্রনায়িকা মৌসুমী ও খল অভিনেতা মিশা সওদাগর। সহ-সভাপতির দুটি পদে প্রার্থী হয়েছেন মনোয়ার হোসেন ডিপজল, রুবেল ও নানা শাহ। সাধারণ সম্পাদক পদে জায়েদ খানের প্রতিদ্বন্দ্বী ইলিয়াস কোবরা। সহ-সাধারণ সম্পাদক পদে লড়ছেন আরমান ও সাংকো পাঞ্জা। সাংগঠনিক সম্পাদক পদে অভিনেতা সুব্রত’র বিপরীতে কোনো প্রার্থী নেই। আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক পদে লড়ছেন নূর মোহাম্মদ খালেদ ও চিত্রনায়ক ইমন।

দপ্তর ও প্রচার সম্পাদক পদে একাই রয়েছেন জ্যাকি আলমগীর। সংস্কৃতি ও ক্রীড়া সম্পাদক পদে লড়বেন জাকির হোসেন ও ডন। কোষাধ্যক্ষ পদে অভিনেতা ফরহাদের কোনো প্রতিদ্বন্দ্বী নেই। অর্থাৎ সুব্রত জ্যাকি আলমগীর এবং ফরহাদ বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন।

এবারের নির্বাচনে কার্যকরী পরিষদ সদস্যের ১১টি পদের জন্য প্রার্থী হয়েছেন ১৪ জন। তারা হলেন— অঞ্জনা সুলতানা, রোজিনা, অরুণা বিশ্বাস, আলীরাজ, আফজাল শরীফ, বাপ্পারাজ, রঞ্জিতা, আসিফ ইকবাল, আলেকজান্ডার বো, জেসমিন, জয় চৌধুরী, নাসরিন, মারুফ আকিব ও শামীম খান (চিকন আলী)।



মন্তব্য চালু নেই