মেইন ম্যেনু

এবার আল-আকসায় ইহুদিদের প্রার্থনার অনুমতি দিচ্ছে ইসরাইল

মুসলমানদের পবিত্র মসজিদ ‘আল-আকসা’তে শিগগিরই ইহুদিদের প্রার্থনার অনুমতি দিতে যাচ্ছে ইসরাইল। শুক্রবার ইসরায়েলের জননিরাপত্তা বিষয়ক মন্ত্রী গিলাদ এরদান বলেন, শিগগিরই আল-আকসা মসজিদের ভেতরে ইহুদিদের প্রার্থনার অনুমতি দেয়া হবে।

এরদান আরও বলেন, জেরুজালেমের পরিস্থিতি স্থানটির নিয়ন্ত্রণ ও সার্বভৌম ক্ষমতা অর্জনের দিকে যাচ্ছে। আমরা যখন ইহুদিদের জন্য আল-আকসার দরজা খুলতে পারব, তখন তারা টেম্পল মাউন্টে (আল-আকসা মসজিদ) প্রবেশ করে প্রার্থনা করতে চাইলে তা করতে দেয়া হবে। আমি আশা করছি, এটি শিগগিরই ঘটবে।

এই অনুমতি কখন মিলবে ইসরাইলিদের সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নে মন্ত্রী বলেন, ‘আমি আগাম বলতে পারি না যে, ঠিক কখন এটি ঘটবে।

তিনি বলেন, বিষয়টি আমাদের শক্তির সঙ্গে সম্পর্কিত নয়। তবে আগামী কয়েক বছরের মধ্যে আমরা সফল হব বলে আশা করছি। তবে এ সফলতা পেতে ১০ বছর লাগবে না আমি নিশ্চিত।

এরদান যোগ করেন, যখন আমরা আল-আকসা মসজিদের ভেতরে প্রার্থনা করতে পারব তখন ইসরাইলের আন্তর্জাতিক স্বার্থের আলোকে জেরুজালেমের ঐতিহাসিক অবস্থানের স্থিতাবস্থা পরিবর্তনের জন্য কাজ করব আমরা।

প্রসঙ্গত মুসলিমদের প্রথম কিবলা আল-আকসা। যে কারণে বাইতুল মাকদিস ও মসজিদ-ই-নববির পরই আল-আকসাকে পবিত্র হিসেবে ধরা হয় ইসলাম ধর্মে।

এছাড়াও আল-আকসার সঙ্গে নবী হযরত মুহাম্মদ সাল্লেল্লাহু আলাইহে ওয়া সাল্লামের স্মৃতি যুক্ত।

ইসলামের বর্ণনা অণুযায়ী, মুহাম্মদ (সা.) মিরাজের রাতে মসজিদুল হারাম থেকে আল-আকসা মসজিদে এসেছিলেন এবং এখান থেকে তিনি ঊর্ধ্বাকাশের দিকে যাত্রা করেন। যে কারণে জেরুজালেম শহরটি ইসলাম ধর্মে আলাদা মর্যাদা বহন করে।

তবে জেরুজালেমকে নিজেদের অবিভাজ্য রাজধানী বলে দাবি করে আসছে ইসরাইল। ১৯৬৭ সালের আরব যুদ্ধের পর থেকে ইসরাইল পূর্ব জেরুজালেম দখল করে রেখেছে।

যদিও আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় পূর্ব জেরুজালেমকে ইসরায়েলের রাজধানী হিসেবে স্বীকৃতি দেয়নি।

সূত্র: দ্য মিডল ইস্ট মনিটর



মন্তব্য চালু নেই