শিরোনাম:

খাগড়াছড়িতে সপ্তাহব্যাপী বৃক্ষরোপণ অভিযান ও বৃক্ষমেলার উদ্বোধন

খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলায় “বৃক্ষপানে প্রকৃতি-পরিবেশ, আগামী প্রজন্মের টেকসই বাংলাদেশ” এই শ্লোগানকে সামনে রেখে জেলা বন বিভাগ কর্তৃক আয়োজিত জেলা প্রশাসনের সহযোগিতায় সপ্তাহব্যাপী বৃক্ষরোপণ অভিযান ও বৃক্ষমেলা-২০২২উদ্বোধন করা হয়েছে।

বুধবার(২৯শে জুন) সকালে জেলা প্রশাসকের কার্যালয় থেকে বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা বের করা হয়।শোভাযাত্রাটি শহরের প্রধান সড়ক প্রদিক্ষণ করে টাউন হল প্রাঙ্গণে এসে শেষ হয়। পরে ফিতা কেটে ও বেলুন উড়িয়ে বৃক্ষরোপণ অভিযান ও বৃক্ষমেলা-২০২২ এর শুভ উদ্বোধন করেন জেলা প্রশাসক প্রতাপ চন্দ্র বিশ্বাস।

উদ্বোধনকালে আলোচনা সভায় বক্তারা বলেন, বৃক্ষ আমাদের পরম বন্ধু। বৃক্ষ শুধু প্রাকৃতিক শোভাই বাড়ায় না, মাটির ক্ষয় রোধ করে, বন্যা প্রতিরোধ করে, ঝড় তুফানকে বাধা দিয়ে জীবন ও সম্পদ রক্ষা করে। আবহাওয়া নিয়ন্ত্রণেও বৃক্ষের ভূমিকা অপরিসীম। বৃক্ষ ছাড়া পৃথিবী মরুভূমিতে পরিণত হতো। বৃক্ষ অক্সিজেন সরবরাহ করে আমাদের বাঁচিয়ে রাখে। বৃক্ষ আমাদের পরিবেশের অতি গুরুত্বপূর্ণ উপাদান এবং অন্যতম বনজ সম্পদ। বৃক্ষের পাতা, ফল ও বীজ আমরা খাদ্য হিসেবে গ্রহণ করি। বৃক্ষ থেকে তন্তু আহরণ করে আমাদের পরিধেয় বস্ত্র প্রস্তুুত করা হয়। বৃক্ষ থেকে প্রাপ্ত কাঠ দিয়ে আমাদের বাড়িঘর ও আসবাব তৈরি করা হয়।

প্রতাপ চন্দ্র বিশ্বাস আরো বলেন, পার্বত্য চট্টগ্রামে আগে বহু প্রজাতির গাছ ছিল। কিন্তু ইদানিং অপরিকল্পিত বৃক্ষ কর্তন ও অসচেতনতার কারণে নিমূল হয়ে গেছে। পাহাড়ের অনেক মূল্যবান গাছকে আমরা হারিয়েছি। কিন্তু তা পরিবর্তে কিছু নতুন প্রজাতির গাছও দেখতে পেয়েছি। যা কৃষক ও বাগানিরা ইতিমধ্যে লাগিয়ে সুফলও পেয়েছে। খাগড়াছড়িতে যে পরিমাণ ফলের বাগান রয়েছে তা কিন্তু আগে ছিল না। পাহাড়ের আম্রপলি আম এখন দেশের বিভিন্ন প্রান্তে যাচ্ছে। যারফলে কিছুটা দরিদ্র নিরসন ও অর্থনৈতিকভাবে স্বাবলম্বী হচ্ছে।
এ সময় খাগড়াছড়ি বন বিভাগের বিভাগীয় কর্মকর্তা মো: হুমায়ুন কবিরের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন পার্বত্য চট্টগ্রাম ভারত প্রত্যাগত শরনার্থী বিষয়ক টাস্কফোর্সে’র প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা কৃষ্ণ চন্দ্র চাকমা, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার কে.এইচ.এম এরশাদ, মেয়র নির্মলেন্দু চৌধুরী, জেলা দুর্নীতি দমন কমিটির আহবায়ক সুদর্শন দত্ত, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক(শিক্ষা ও আইসিটি) গোলাম মোহাম্মদ বাতেন, জেলা প্রতিবন্ধী কর্মকর্তা মো: শাহজাহান, খাগড়াছড়ি প্রেসক্লাবের সভাপতি জিতেন বড়ুয়া, দীঘিনালা উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মোহাম্মদ কাশেম, সদর রেঞ্জ কর্মকর্তা বাবুরাম চাকমাসহ উচ্চ পদস্থলের কর্মকর্তাবৃন্দ প্রমুখ। এসময স্বাগত বক্তব্য রাখেন খাগড়াছড়ি বন বিভাগের সহকারী বন সংরক্ষক মোঃ মোজাম্মেল হোসেন।

জেলা প্রশাসন ও বন বিভাগ যৌথ উদ্যোগে এ আয়োজন করা হয়। মেলায় শতাধিক প্রজাতির বনজ ও ফলজ ভেষজ চারা নিয়ে প্রদর্শনী সাজানো হয়েছে। মেলায় সব বয়সী মানুষের পাশাপাশি স্কুলের শিক্ষার্থীরা ভীড় করেছে। আগামী ৫ই জুলাই পর্যন্ত এই মেলা চলবে।
খাগড়াছড়ি সদর রেঞ্জ কর্মকর্তা বাবুরাম চাকমা জানান, বুধবার থেকে সাতদিন ব্যাপী এই মেলা চলবে। মেলায় ২২টি স্টল আছে। বিভিন্ন নার্সারী মেলায় অংশ গ্রহন করেছে। তাছাড়া খাগড়াছড়ি বন বিভাগ সকালে তিনটি স্কুলে এক হাজার ফলজ, বনজ ও ঔষধি চারা বিতরণ করা হয়েছে।