প্রধান ম্যেনু

গায়ে হলুদের অনুষ্ঠানে পুলিশ নিয়ে হাজির সহকারী কমিশনার

অতিথিদের দাওয়াত দেয়া থেকে শুরু করে বিয়ের সব আয়োজন শেষ। শুক্রবার বিয়ে। বৃহস্পতিবার ছিল গায়ে হলুদ। বিকেলে বরপক্ষ গায়ে হলুদ দিতে এসেছে। এমন সময় বিয়েবাড়ি হাজির উপজেলা প্রশাসন ও থানা পুলিশ। বন্ধ করা হলো বাল্যবিয়ে।

গাজীপুরের কালিয়াকৈর উপজেলার মধ্যপাড়া ইউনিয়নের আমদাইর গ্রামে বৃহস্পতিবার এ ঘটনা ঘটে।

এলাকাবাসী ও উপজেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার আমদাইর গ্রামের প্রবাসী আফাজ উদ্দিনের মেয়ে অষ্টম শ্রেণির ছাত্রী ফেরদৌসী আক্তার। তার অমতে উপজেলার জালুয়াভিটি গ্রামের এক ছেলের সঙ্গে বিয়ে দিচ্ছিলেন মেয়ের চাচা জুলহাস মিয়া। কয়েকদিন ধরে মেয়েটি স্কুলে তার বান্ধবীর কাছে কান্নাকাটিও করেছে। সে বয়স বাড়িয়ে বিয়ে করবে না বলে জানালেও মেয়েটির পরিবার তার কথা শোনেনি।

গত কয়েকদিন ধরে তাকে বিয়ে দেয়ার জন্য সব আয়োজন চলছিল। ইতোমধ্যে অতিথিদের দাওয়াত দেয়া, প্যান্ডেল করাসহ সবকাজ শেষ করেছে পরিবার। শুক্রবার বিয়ে। বৃহস্পতিবার চলছিল গায়ে হলুদের অনুষ্ঠান। এরইমধ্যে গ্রামবাসী বাল্যবিয়ের বিষয়টি কালিয়াকৈর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাইফুল ইসলামকে অবহিত করে।

পরে কালিয়াকৈর উপজেলা সহকারী কমিশনার(ভূমি) শাহ মো. শামছুজ্জোহার নেতৃত্বে কালিয়াকৈর থানা পুলিশ বিকেলে ওই বাড়িতে গিয়ে ঘটনার সত্যতা পায়। এ সময় বিয়ের সব আয়োজন বন্ধ করা হয়।

কালিয়াকৈর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) শাহ মো. শামছুজ্জোহা জানান, মেয়ের পরিবারের মুচলেকা নেয়া হয়েছে বয়স ১৮ হওয়ার আগে কোনো অবস্থাতেই বিয়ে দিতে পারবে না।



মন্তব্য চালু নেই