মেইন ম্যেনু

চার্জশিটে মেয়েকে আসামি করায় ক্ষুব্ধ মিন্নির বাবা

বরগুনার আলোচিত রিফাত শরীফ হত্যা মামলায় রিফাতের স্ত্রী আয়শা সিদ্দিকা মিন্নিসহ ২৪ জনের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র (চার্জশিট) দিয়েছে পুলিশ। রোববার বিকেল সাড়ে চারটার দিকে বরগুনার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ সিরাজুল ইসলাম গাজীর আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেছেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা মো. হুমায়ুন কবির।

বিকেলে বরগুনার পুলিশ সুপার মো. মারুফ হোসেন এক প্রেসবিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

অভিযোগপত্রে মিন্নির নাম রাখার প্রসঙ্গে তার বাবা বলেন, ‘আমি আইনি লড়াইয়ের মাধ্যমে যেভাবে মহামান্য হাইকোর্ট থেকে মিন্নির জামিন পেয়েছি, ইনশাআল্লাহ সেভাবেই আইনি লড়াইয়ের মাধ্যমে আমার মেয়ে মুক্তি পাবে।’

মিন্নিকে নির্দোষ দাবি করে তার বাবা মোজাম্মেল হোসেন কিশোর আরও বলেন,‘সারাদেশ এবং বিশ্ব দেখেছে, আমার মেয়ে মিন্নি তার স্বামী রিফাত শরীফকে বাঁচাতে প্রাণপণ চেষ্টা করেছে। তারপরও যাদের চক্রান্ত ও প্ররোচনায় এবং যারা অর্থের লোভে প্রভাবিত হয়ে আমার মেয়েকে এভাবে বিনাদোষে মামলায় জড়াচ্ছে, তাদের বিচার আল্লাহ করবেন।’

৩০ জুলাই মিন্নি তার জবানবন্দি প্রত্যাহারের আবেদন করেন। এর আগে গত ১৬ জুলাই দিনভর জিজ্ঞাসাবাদ শেষে রাত ৯টার দিকে মিন্নিকে গ্রেফতার দেখানো হয়। পরে ১৭ জুলাই মিন্নিকে বরগুনার সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট সিরাজুল ইসলাম গাজীর আদালতে হাজির করে ৭ দিনের রিমান্ড চায় মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা। আদালত ৫ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করে আদেশ দেয়। পরে এ মামলায় মিন্নি স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন। এখন তিনি বরগুনা কারাগারে রয়েছেন। তার জামিন চেয়ে আনা আবেদন নাকচ করে দেয় জেলার জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্র্যাট আদালত। পরে জেলা ও দায়রা জজ আদালতও মিন্নির জামিন আবেদন নাকচ করে আদেশ দেয়।

গত ২৬ জুন সকাল সাড়ে দশটার দিকে বরগুনা সরকারি কলেজের মূল ফটকের পাশে রিফাতকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে স্ত্রীর সামনে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে জখম করে কয়েকজন যুবক। সেসময় নানাভাবে নিজেকে রক্ষার চেষ্টা করেও শেষ পর্যন্ত বাঁচতে পারেনি রিফাত। ওই ঘটনার একটি ভিডিও পরে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রচার হলে তা ব্যাপক ভাবে ভাইরাল হয়।



মন্তব্য চালু নেই