শিরোনাম:

চালের কৃত্রিম সংকট তৈরি করছে অসাধু ব্যবসায়ীরা : খাদ্যমন্ত্রী

এক শ্রেণীর অসাধু ব্যবসায়ী খাদ্যের কৃত্রিম সংকট সৃষ্টি করছে বলে মন্তব্য করেছেন খাদ্যমন্ত্রী কামরুল ইসলাম। তিনি বলেন, ‘দেশে খাদ্য সংকট না থাকলেও এক শ্রেণির অসাধু ব্যবসায়ী জনগণকে চিন্তায় ফেলানোর জন্য কৃত্রিম সংকট সৃষ্টি করছে। এ অবস্থা চলতে থাকলে আমরা তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করতে বাধ্য হব।’

বুধবার জাতীয় প্রেসক্লাবে এক অনুষ্ঠানে খাদ্যমন্ত্রী একথা বলেন।

বেশ কিছুদিন থেকে সারাদেশে চালের দাম বেড়ে যায়। দেশের বিভিন্ন বাজারে বোরোর নতুন চাল আসলেও বেড়েই চলছে চালের দাম। সম্প্রতি সুনামগঞ্জ, নেত্রকোনাসহ দেশের বেশ কয়েকটি হাওরে অকাল বন্যা দেখা দিলে চালের বাজার আরও অস্থিতিশীল হয়ে পড়ে। সুযোগকে কাজে লাগিয়ে চালের দাম বাড়িয়ে দেয় ব্যবসায়ীরা। কিছু ব্যবসায়ির কারসাজির কারণে চালের দাম বেড়েছে বলে বিভিন্ন সময় দাবি করেন খাদ্যমন্ত্রী কামরুল ইসলাম। সংকট না হতে বাজার পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে বলে জানান তিনি।

আজকের অনুষ্ঠানে কামরুল ইসলাম জানান, খাদ্যের মজুদ বাড়াতে সরকার আন্তর্জাতিক বাজার থেকে খাদ্য আমদানির প্রক্রিয়া শুরু করেছে। সরকারের অগ্রগতি সহ্য করতে না পেরে বিএনপি ভিশন টোয়েন্টি থার্টির নামে রাজনৈতিক ভাওতাবাজি করছে।

খাদ্যমন্ত্রী বলেন, ‘পর্যাপ্ত খাদ্যমজুদ আছে বলেই আমরা হাওর অঞ্চলে সাহায্য করতে পারছি। সাহায্য করার মত খাদ্য মজুদ সরকারের কাছে ইনশাল্লাহ আছে। বিচলিত হওয়ার কারণ নাই।’