মেইন ম্যেনু

চুয়াডাঙ্গায় শুরু হলো বন্ধ হয়ে যাওয়া জাইকার গভীর পানির পাম্প স্থাপনের কাজ

শামীম রেজা, চুয়াডাঙ্গা জেলা প্রতিনিধি: বছর দুয়েক আগে রংপুরে জাপানি নাগরিক হোসে কোনিও হত্যার পর বাংলাদেশ থেকে জাইকা যখন তাদের কার্যক্রম গুটিয়ে নেয়, সেই সময় বন্ধ হয়ে গিয়েছিলো চুয়াডাঙ্গা পৌরসভার অধীনে জাইকার অর্থায়নে গভীর পানির পাম্প স্থাপনের কার্যক্রম। গত শনিবার বেলা ১১টায় শহরের হাজরাহাটি এলাকায় কার্যক্রম বন্ধ হয়ে যাওয়া ৪’শ মিটার গভীরতার সেই পানির পাম্প স্থাপনের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করা হয়েছে। চুয়াডাঙ্গা জেলা প্রশাসক জিয়াউদ্দিন আহমেদ এ প্রকল্পের উদ্বোধন করেন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন প্রকল্প পরিচালক সাইফুর রহমান, পৌর মেয়র ওবায়দুর রহমান চৌধুরী জিপু, প্রকল্পের নির্বাহী প্রকৌশলী সুলতান মাহমুদ (ঢাকা), থাই বিশেষজ্ঞ প্রকৌশলী মি. জামনিয়ান ও মি. ফাই স্কাই, জাইকার হাইড্রোলজিস্ট সাদ্দাম হোসেন, পৌরসভার প্যানেল মেয়র একরামুল হক মুক্তা, ওয়ার্ড কাউন্সিলর রাসেদুল হাসান মানু, মুন্সি রেজাউল করিম খোকন, জাহাঙ্গীর আলম, আবুল হোসেন, সংরক্ষিত কাউন্সিলর সুলতান আরা রতœা, শাহিনা আক্তার রুবি, শেফালী খাতুন, জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক জানিফ, পৌরসভার সহকারী প্রকৌশলী (পানি) এএইচএম সাহীদুর রশীদ, হাজরাহাটি এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিদের মধ্যে হাজি ইউনুছ আলী, সমীর হোসেন প্রমুখ। জাইকার অর্থায়নে জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদফতরের তত্বাবধানে দেড় কোটি টাকা ব্যয়ে আগামী ২ মাসের মধ্যে প্রকল্পটি শেষ হবে। জাপান ও থাইল্যান্ডের প্রকৌশলীরা সুপেয় ও নিরাপদ পানির এ গভীর নলকূপ স্থাপনের কাজে নিয়োজিত আছেন। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি জেলা প্রশাসক বলেন, প্রকল্পটি সফল হলে চুয়াডাঙ্গা পৌরবাসীর পানি সমস্যা অনেকাংশে লাঘব হবে। দোয়া মাহফিলের পর তিনি খনন মেশিনের লিভার টেনে কার্যক্রমের আনুষ্ঠানিক যাত্রার উদ্বোধন করেন। পৌর মেয়র ওবায়দুর রহমান চৌধুরী জিপু বলেন, চুয়াডাঙ্গা পৌর এলাকার হাজরাহাটিতে দেড় কোটি টাকা ব্যয়ে এ ৪’শ মিটার গভির নলকূপটির কাজ বছর দেড়েক আগেই শেষ হওয়ার কথা ছিলো।

প্রকল্প এলাকায় ওই সময় কিছু মালামালও মজুদ করা হয়েছিলো। কিন্তু রংপুরে জাপানি নাগরিক হোসে কোনিও হত্যার পর কাজ বন্ধ হয়ে যায় এবং হাজরাহাটিতে কাজ করা জাপানি দু’নাগরিক চলে যান। ট্রাকে করে ফেরত নিয়ে যাওয়া হয় সব যন্ত্রাংশ। এরপর থেকে কাজটি হুমকির মুখে পড়ে। অবশেষে জাইকার প্রতিনিধিদল আবারও চুয়াডাঙ্গায় ফিরে এলে সকল জল্পনা-কল্পনা ও গুজবের অবসান হয়। কাজটি আবার শুরু করতে পেরে অনেক ভালো লাগছে বলে জানান চুয়াডাঙ্গা পৌর মেয়র।

উল্লেখ্য, চুয়াডাঙ্গা ও পাবনার বেড়া পৌরসভায় ২টি অত্যাধুনিক গভীর নলকূপ স্থাপন করার উদ্যোগ নেয় সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়। ইতোমধ্যে পাবনার বেড়া পৌরসভার কাজটি শেষ হয়েছে। জাইকার (জাপান) অর্থায়নে জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদফতরের সহযোগিতায় এ নলকূপ দুটি স্থাপন করা হচ্ছে।



মন্তব্য চালু নেই