মেইন ম্যেনু

‘ছাত্রলীগ-যুবলীগই নয়, আ.লীগের অনেকেও নজরদারিতে’

শুধু ছাত্রলীগ বা যুবলীগই নয় আওয়ামী লীগেরও অনেক নেতা নজরদারিতে আছেন বলে মন্তব্য করেছেন দলটির সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেন, যারা দলের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন করবে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা অব্যাহত থাকবে। অপকর্মে জড়িত কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না।

শুক্রবার আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার ধানমন্ডি রাজনৈতিক কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে এসব কথা বলেন কাদের।

সহযোগী সংগঠন যুবলীগ ও ছাত্রলীগের নেতাদের নানা বিতর্কিত কর্মকাণ্ডের কারণে বিভিন্ন সময় বিব্রত হতে হয়েছে আওয়ামী লীগকে।

সম্প্রতি ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের বিরুদ্ধে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের কাছে উন্নয়ন প্রকল্প থেকে চাঁদা দাবির অভিযোগ উঠলে কঠোর মনোভাব দেখান আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা।

গত শনিবার আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সংসদের বৈঠকে শেখ হাসিনা তা নিয়ে বিরক্তি প্রকাশের পর পদত্যাগ করেন ছাত্রলীগের দুই শীর্ষনেতা। ওই বৈঠকে যুবলীগের কয়েক নেতার কর্মকাণ্ডেও অসন্তোষ ঝরে তার কণ্ঠে।

এরপর যুবলীগের নেতাদের জুয়ার আখড়া চালানোর খবর চাউর হওয়ার মধ্যে বুধবার ঢাকায় চারটি ক্যাসিনোতে অভিযান চালায় র‌্যাব। গ্রেপ্তার করা হয় যুবলীগের ঢাকা মহানগরের শীর্ষ পর্যায়ের এক নেতাকে।

গতকাল রাতে ছাত্রলীগের নতুন সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক দেখা করতে গেলে প্রধানমন্ত্রী বলেন, সরকার যে উন্নয়ন করেছে, তাতে কালিমা লাগাবে, এমন কোনো কর্মকাণ্ড সহ্য করবেন না তিনি।

সকালে আওয়ামী লীগের ধানমন্ডি কার্যালয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, শুধু ছাত্রলীগ ও যুবলীগই নয় আওয়ামী লীগের অনেকেই নজরদারিতে আছেন। যারা দলের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন করবে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা অব্যাহত থাকবে। অপকর্মে জড়িত কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না।

অপকর্মে জড়িতদের বিরুদ্ধে অ্যাকশন নেওয়ায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জনপ্রিয়তা বেড়েছে বলে সংবাদ সম্মেলনে মন্তব্য করেন সেতুমন্ত্রী।

বিএনপি সরকারে থাকার সময়ও ক্যাসিনো ছিল এমনটা জানিয়ে কাদের বলেন, এমন নয় যে নির্বাচনকে সামনে রেখে আমরা কিছু ব্যবস্থা নিচ্ছি। আমরা প্রথম ৮-৯ মাসেও ব্যবস্থা নিয়েছি। তাদের (বিএনপি) সময় এই ক্যাসিনোগুলো ছিল। তখন তো তারা কোনো অ্যাকশন নেয়নি।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, আমার বক্তব্য হচ্ছে বিএনপি যা করতে পারেনি সেটা আওয়ামী লীগ সরকার করছে। খালেদা জিয়া সরকার যা পারেনি, সেটা শেখ হাসিনা সরকার করছে। এতে সরকার এবং দলের ভাবমূর্তি বাড়ছে। সেটাই বিএনপির গাত্রদাহের কারণ।



মন্তব্য চালু নেই