মেইন ম্যেনু

জিমেইল অ্যাকাউন্ট থেকেই করতে পারবেন ফোন

বিশ্বজুড়ে জিমেইলের খ্যাতি নিয়ে প্রশ্ন তুলবে না কেউ। ইমেইল ব্যবহারকারীদের একটা বড়ো অংশই এই প্ল্যাটফর্মের ওপর নির্ভরশীল। অফিসিয়াল বা আন-অফিসিয়াল কাজের ক্ষেত্রে, প্রতিদিনের তথ্য চালাচালি করতে, অনেকেরই নির্ভরযোগ্য মাধ্যম জিমেইল। তবে একটা বিষয় শুনলে অবাক হবে। যে মাধ্যমকে আপনি প্রতিদিন ব্যবহার করেন, মনে মনে ভাবেন মাধ্যমটি সম্পর্কে আপনি সব জানেন, কিন্তু তেমনটা একদমই নয়? বিশেষজ্ঞরা বলছে, জিমেইলের এমন অনেক ফিচার রয়েছে, যা এখনও অনেকের অজানা।

জিমেইলের পাঁচটি অজানা ফিচার:

১। প্রয়োজনীয় পাঠানো মেইলটিতে যদি ভুল রয়ে যায়, তবে কেমন লাগে! নিশ্চই মাথার ওপর বজ্রপাত হয়। তখন পাঠিয়ে দেওয়া মেইলটি ফেরত নেওয়া ছাড়া কোনো উপায় থাকে না। কিন্তু কীভাবে তা সম্ভব? জানা গিয়েছে, কোনো মেইল পাঠানোর ৩০ সেকেন্ডের মধ্যে মোবাইল, ল্যাপটপ বা কম্পিউটার স্ক্রিনের ওপর আনডু বলে একটা অপশন ভেসে ওঠে। ভুল মেইল পাঠালে একবার সেই অপশনে ক্লিক করলেই আপনার পাঠানো মেইলটি আবার ফেরত চলে আসবে প্রেরকের কাছে।

২। কোনো দিন একসঙ্গে একাধিক জিমেইল অ্যাকাউন্ট ব্যবহার করেছেন? না করে থাকলে এবার করতে পারবেন। কীভাবে? এরজন্য প্রথমে, Add Account button-এ ক্লিক করতে হবে। তারপর দ্বিতীয় ইমেলের আইডি ও পাসওয়ার্ড টাইপ করে এন্টার বা ওকে টিপতে হবে। আর তারপরই আলাদা ট্যাবে খুলে যাবে অন্য জিমেলটি।

৩। প্রত্যেকদিনই প্রচুর সংখ্যক ইমেইল আসে আপনার ইনবক্সে ব্যবহারকারীদের অ্যাকাউন্টে। প্রয়োজন অনুযায়ী মেইলগুলিকে সাজিয়ে নিলে ভালোই হয়। কিন্তু সেই পন্থাটাও তো জানতে হবে। সেক্ষেত্রে প্রথমে, সেটিংসে যেতে হবে। তারপর জেনারেল সেটিংসে গিয়ে স্টার অপশনে ক্লিক করলেই হয়ে যাবে।

৪। হোয়াটসঅ্যাপ, মেসেঞ্জার থেকে ফোন আমরা করেই থাকি। কিন্তু জিমেইল থেকেও যে ফোন করা যায়, সেটা জানেন? সেক্ষেত্রে গুগল টক নামক অ্যাপটি ডাউনলোড করতে হবে। এরপর ইনবক্সের নীচের বাঁ দিকে ক্লিক করতে হবে। তারপর যে নম্বরে ফোন করতে চান, তা টাইপ করতে হবে। এবং অনায়াসে আপনি জিমেইল থেকে ফোন করতে পারবেন।

৫। জিমেইলেরও কিছু কিওয়ার্ডসের শর্ট কার্ট রয়েছে, যা অনেকেরই এজানা। কীভাবে সেগুলি জানবেন? এরজন্য প্রথমে সেটিংসে যেতে হবে। তারপর কিবোর্ড শর্ট কার্ট অপশনে ক্লিক করতে হবে। এবং নিজের পছন্দমতো শর্ট কার্ট বেছে নিতে হবে।



মন্তব্য চালু নেই