প্রধান ম্যেনু

জুতা পায়ে শহীদ মিনারে আ.লীগ নেতা

বগুড়ার ধুনট উপজেলায় জুতা পায়ে শহীদ বেদিতে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ করেছেন আওয়ামী লীগ নেতা ও ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) সদস্য সোহেল রানা। জুতা পায়ে শহীদ বেদিতে তার ফুল দেওয়ার ছবি ফেসবুকে ভাইরাল হলে এলাকায় সমালোচনার সৃষ্টি হয়।

সোহেল রানা উপজেলার মথুরাপুর ইউনিয়নের ৫ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও মথুরাপুর ইউনিয়ন পরিষদের ৫ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য।

ধুনটের মথুরাপুর ইউনিয়নের রামবল্লভপুর খাদুলী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে এ ঘটনা ঘটে।

এ প্রসঙ্গে ধুনটের মথুরাপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি হাসান আহম্মেদ জেমস মল্লিক বলেন, ‘শহীদ বেদিতে জুতা পায়ে প্রবেশ চরম অন্যায়। ঘটনাটি শুনে অত্যন্ত মর্মাহত হয়েছি। এমন বেয়াদবি বোধগম্য নয়। বিষয়টি দলীয় ফোরামে আলোচনা করে তাকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেওয়া হবে।’

জানা গেছে, ধুনটের রামবল্লভপুর খাদুলী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে অবস্থিত শহীদ মিনারে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে ওই স্কুলের শিক্ষকদের সঙ্গে সোহেল রানা শ্রদ্ধা জানান। এ সময় তার পায়ে জুতা দেখে শিশু শিক্ষার্থীরা তা খুলে ফেলার অনুরোধ জানান। কিন্তু তা না শুনে তিনি শহীদ বেদিতে উঠে পড়েন। এতে মুক্তিযোদ্ধা ও এলাকার লোকজন ক্ষোভ প্রকাশ করেন। পরে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে তা ভাইরাল হয়।

এ বিষয়ে আওয়ামী লীগ নেতা সোহেল রানা বলেন, ‘ওই সময় বিদ্যালয়ের পাশ দিয়ে যাচ্ছিলাম। তখন প্রধান শিক্ষকের ডাকে তাড়াহুড়ো করে শহীদ বেদিতে উঠেছি। জুতা খোলার বিষয়টি খেয়াল ছিল না। এটা আমার বড় ধরনের ভুল হয়েছে।’

ধুনট উপজেলার রামবল্লভপুর খাদুলী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নুরুন্নবী বলেন, ‘জুতা পায়ে শহীদ মিনারে ফুল দেওয়ার সময় লক্ষ্য করিনি। তবে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হওয়ার পর বিষয়টি জেনেছি। এটা অত্যন্ত দুঃখজনক ঘটনা।’



মন্তব্য চালু নেই