মেইন ম্যেনু

ডিমলায় অষ্টকালীন লীলা কীর্ত্তন ও বারুনী মেলা

হামিদা আক্তার, নীলফামারী : কেন্দ্রীয় ঐতিহ্যবাহী মহাশ্মশান পীঠধাম বারুনী মেলায় মধুকৃষ্ণ এয়োদশী মহাশ্মশান অষ্টকালীন লীলাকীর্ত্তন উপলক্ষে ডিমলা মহাশ্মশান যুব কমিটির আয়োজনে দুই দিন ব্যাপী অনুষ্ঠানে কীর্ত্তন পরিবেশনায় ছিলেন ভারত কলকাতা শহরের শ্রীশ্রী রাঁধা মাধব সম্প্রদায়ের শ্রী প্রান প্রদীপ ঘোষ, ভারতের উত্তর চব্বিশ পরগণার শ্রীশ্রী রাঁধা রমন সম্প্রদায়ের শ্রীমতি সুপ্রিয়া সরকার ও লালমনিরহাটের আদিতমারী উপজেলার শ্রীশ্রী দীপান্নিতা সম্প্রদায়ের শ্রী অরবিন্দু বর্মন দীপক প্রমূখ। সনাতন ধর্মালম্বী ভক্তবৃন্দ লীলা কীর্ত্তন অনুষ্ঠানে যোগ দিয়ে ভক্তবৃন্দরা ব্যকুল হৃদয়ে ভগবানের প্রার্থনায় মশগুল হয়ে হয়ে পড়েন। কীর্ত্তনানুষ্ঠানে হাজার হাজার ভক্তবৃন্দ উপস্থিত থেকে অনষ্ঠান শ্রবনে মগ্ন হয়ে যান। এ সময় তারা জানান, ১৯৪০ খ্রিষ্টাব্দ থেকেই এই ঐতিহ্যবাহী মহাশ্মশান পীঠধামে অষ্টকালীন লীলা কীর্ত্তন ও বারুনী মেলা অনুষ্ঠিত হয়ে আসছে। প্রতিবছর দেশ বিদেশের ভক্তবৃন্দরা উপস্থিত থেকে এই মধুকৃষœা এয়োতদশী মহাশ্মশান অষ্টকালীন লীলাকীর্ত্তন শ্রবন করেন। আওয়ামী যুবলীগের আহবায়ক বাবু শৈলেন চন্দ্র রায়, কীর্ত্তন ও বারুনী মেলা কমিটির সদস্যবৃন্দ ও ভক্তবৃন্দের উপস্থিতিতে কেন্দ্রীয় ঐতিহ্যবাহী মহাশ্মশান কমিটির সভাপতি সুভাষ চন্দ্র সরকার এর সভাপতিত্বে নীলফামারী-১ (ডোমার-ডিমলা) আসনের সাংসদ বীরমুক্তিযোদ্ধা আফতাব উদ্দিন সরকার বৃহস্পতিবার অষ্টপ্রহরে অনুষ্ঠানের শুভ উদ্বোধন ঘোষনা করেন। অনুষ্ঠানটি শুক্রবার সমাপ্তি ঘোষনা করেন মহাম্মশান কমিটি।



মন্তব্য চালু নেই