প্রধান ম্যেনু

ঢাকার দুই সিটিতে ভোট চলছে

ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশন নির্বাচনের ভোট গ্রহণ চলছে।নতুন নগরপিতা নির্বাচন করতে সকাল থেকে বিভিন্ন কেন্দ্র ভোটারদের লাইন দেখা গেছে। শনিবার সকাল আটটা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত ভোট গ্রহণের মাধ্যমে রাজধানী ঢাকার দুই সিটির পরবর্তী ‘অভিভাবক’ নির্ধারণ করবেন তারা।

এবার প্রথমবারের মতো ঢাকার দুই সিটি করপোরেশন নির্বাচনে ভোট গ্রহণ হচ্ছে ইভিএম প্রযুক্তিতে। ২ হাজার ৪৬৮টি ভোটকেন্দ্রে ২৮ হাজার ৮৭৮টি ইভিএমে ভোটগ্রহণ শুরু হয়েছে। ইভিএম নিয়ে ভোটারদের মধ্যে ব্যাপক আগ্রহ লক্ষ্য করা গেছে।

নির্বাচনে বিএনপি, আওয়ামী লীগসহ নয়টি দলের ১৩ জন প্রার্থী মেয়র পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। এছাড়া কাউন্সিলর পদে প্রায় সাড়ে সাতশ প্রার্থী রয়েছে ভোটের মাঠে। ইতিমধ্যে ভোটের প্রচার বন্ধ হয়েছে। ভোটের ফলাফল গেজেটে আকারে প্রকাশ পর্যন্ত কোনো প্রকার মিছিল, মশাল মিছিল, মোটরসাইকেল মিছিল, শোডাউন করা যাবে না। বাইক বন্ধ থাকবে ২ ফেব্রুয়ারি সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত। আর সকল যন্ত্রযান বন্ধ থাকবে ১ ফেব্রুয়ারি সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত।

উত্তরে মেয়র পদে ৬ জন, সাধারণ ওয়ার্ড কাউন্সিলর পদে ২৫১ জন এবং সংরক্ষিত ওয়ার্ড কাউন্সিলর পদে ৭৭ জন অর্থাৎ তিন পদে মোট প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী ৩৩৪ জন। মেয়র প্রার্থীরা হলেন- বিএনপির তাবিথ আউয়াল, আওয়ামী লীগের আতিকুল ইসলাম, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের শেখ মো. ফজলে বারী মাসউদ, পিডিপির শাহীন খান, এনপিপির মো. আনিসুর রহমান দেওয়ান ও বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির আহম্মেদ সাজ্জাদুল হক।

অন্যদিকে ডিএসসিসিতে মেয়র পদে ৭ জন, ৫৪টি সাধারণ ওয়ার্ডে কাউন্সিলর পদে ৩৩৫ জন ও ১৮টি সংরক্ষিত ওয়ার্ডে কাউন্সিলর পদে ৮২ জন অর্থাৎ ৪২৪ জন প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী রয়েছে। মেয়র পদে সাত প্রার্থী হলেন-বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের শেখ ফজলে নুর তাপস, বিএনপির ইশরাক হোসেন, জাতীয় পার্টির মোহাম্মদ সাইফুদ্দিন, ইসলামী আন্দোলনের মো. আবদুর রহমান, এনপিপি’র বাহরানে সুলতান বাহার, বাংলাদেশ কংগ্রেসের মো. আকতার উজ্জামান ওরফে আয়াতুল্লা ও গণফ্রন্টের আব্দুস সামাদ সুজন।

২০১৫ সালে বিভক্ত ঢাকার দুই সিটির প্রথম নির্বাচনে কাউন্সিলর, সংরক্ষিত কাউন্সিলর ও মেয়র পদে মোট ৮৯৩ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছিলেন। সে সময়কার (ডিএনসিসি) নির্বাচনে ৩৬টি ওয়ার্ডে ২৮১ জন সাধারণ কাউন্সিলর প্রার্থী ও ৮৯ জন সংরক্ষিত কাউন্সিলর প্রার্থী এবং ১৬ জন মেয়র পদপ্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। আর ডিএসসিসির ৫৭টি ওয়ার্ডে ৩৯০ জন সাধারণ কাউন্সিলর প্রার্থী, ৯৭ জন সংরক্ষিত কাউন্সিলর প্রার্থী ও মেয়র পদে ২০ জন প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী ছিলেন।



মন্তব্য চালু নেই